SEND FEEDBACK

English
Bengali

রাতারাতি খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছনো আম আদমিরা

নিজস্ব প্রতিবেদন | জানুয়ারি ১১, ২০১৭
Share it on
সাধারণ পেশার এই মানুষগুলো তারকা বনে গিয়েছেন মুহূর্তে। সৌজন্যে— সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট। তারপর আর ফিরে তাকাতে হয়নি। কেউ ছেড়েছেন পুরনো পেশা, কেউ পুরনো পেশার পাশাপাশি চালিয়ে যাচ্ছেন মডেলিংয়ের কাজ। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে রাতারাতি তারকা বনে যাওয়া এমনই কিছু আম-জনতার কাহিনি শুনলে মন্দ হয় না!

আরশাদ খান (পাকিস্তান)
ইসলামাবাদের এক চায়ের দোকানের এই কর্মীর খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছতে মাত্র ৪৮ ঘণ্টা সময় লেগেছিল। আরশাদ খান। গত বছর অক্টোবর মাসের কথা। ভোরের অলস ইসলামাবাদের ছবি তুলতে বেরিয়েছিলেন ফোটোগ্রাফার জাভেরিয়া আলি। অবিন্যস্ত চুল, নীল কুর্তা পরা ‘চা-ওয়ালা’ আরশাদকে নজরে পড়তে সময় লাগেনি জাভেরিয়ার। ক্যামেরার লেন্সে লুক দিয়ে যা একখানা পোজ দিয়েছিলেন আরশাদ, তাতেই একেবারে কাত দেশ-বিদেশের 
শত-সহস্র মেয়ে! ইনস্টাগ্রামে তাঁর ছবি ভাইরাল হওয়ার মাত্র দু’দিনের মাথায় প্রথম মডেলিং অ্যাসাইনমেন্ট পেয়েছিলেন আরশাদ। অক্টোবরে তাঁর মডেলিং কেরিয়ার শুরু হয়। কয়েক মাসেই হয়ে উঠেছেন পাকিস্তানের অন্যতম জনপ্রিয় মডেল। একাধিক সিনেমার প্রস্তাবও রয়েছে আরশাদের ঝুলিতে। আপাতত অভিনয় শিখছেন তিনি।

কুসুম শ্রেষ্ঠ (নেপাল)
এই তরুণীর সম্পর্কে খুব বেশি তথ্য মেলে না। তবুও তাঁকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় জল্পনার শেষ নেই। সর্বত্র তাঁর পরিচয় একটাই। সব্জিওয়ালি। আসল নাম কুসুম শ্রেষ্ঠ। কয়েক মাস আগে নেপালের গোর্খা এবং চিতবনের পার্শ্ববর্তী এলাকায় কুসুমের কয়েকটি ছবি তুলেছিলেন ফোটোগ্রাফার রূপচন্দ্র মহাজন। যা সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে পোস্ট করার পরেই ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল মুহূর্তে। পর পর দু’টি ছবি পোস্ট করেছিলেন রূপচন্দ্র। একটিতে কুসুমের পিঠে টমেটো ভর্তি বাক্স। হেঁটে সেতু পার হচ্ছেন তিনি। দ্বিতীয়টিতে, সব্জির বাজারে ফোনালাপে ব্যস্ত কুসুম। এলোমেলো চুল, সবুজ সালোয়ার পরা কুসুম মুহূর্তে হয়ে উঠেছিলেন যুবকদের নয়নের মণি। প্রথমদিকে তাঁর নামটাও জানা যায়নি। প্রকাশ্যে এসেছে অনেক পরে। যাই হোক, কুসুম পড়াশোনার পাশাপাশি চুটিয়ে মডেলিং করছেন।

মিখাইল ভারসাভস্কি (আমেরিকা)
হ্যান্ডসাম ডক্টর! নিউ ইয়র্কের চিকিৎসক মহলে এই নামেই পরিচিত মিখাইল ভারসাভস্কি। ছোট করে— ডক্টর মাইক। পেশায় চিকিৎসক হলেও, সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর জনপ্রিয়তা কোনও সেলিব্রিটির চেয়ে কম নয়। ইনস্টাগ্রাম, টুইটার, ফেসবুকে তাঁর নিজস্ব ভেরিফায়েড পেজ তো রয়েছেই, সম্প্রতি নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলও খুলেছেন এই চিকিৎসক। নিয়মিত নানা ভিডিও আপলোডও করছেন। হিটের সংখ্যাও বেড়ে চলেছে ঝড়ের গতিতে। এক সাক্ষাৎকারে মাইক রসিকতা করে বলেছিলেন, ‘‘নিউ ইয়র্কের অনেক মহিলাই নাকি নিজেদের পরিবারের সদস্যদের বলে রাখেন, যে অসুস্থ হলে তাঁদের যেন ডক্টর মাইকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়।’’ এতেই মালুম পড়ে তাঁর জনপ্রিয়তার বহর। চিকিৎকের পেশা সামলে চুটিয়ে মডেলিং করছেন তিনি। একটি আন্তর্জাতিক পত্রিকার সমীক্ষায় ‘সেক্সিয়েট ডক্টর’এর খেতাবও পকেটে পুরেছেন মাইক।

ওমর বরকান আল গালা (সৌদি আরব)
তিনি নাকি বড্ড বেশি সুদর্শন! সেই কারণে তাঁকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করেছিল সৌদি প্রশাসন। ওমরের জন্ম দুবাইয়ে। মডেলিংয়ের পাশাপাশি লেখালেখি করতেন ওমর। উর্দু কবি হিসেবে বেশ নামও করেছিলেন। সমস্যার সূত্রপাত ২০১৩ সালে। সৌদি আরবের একটি ধর্মীয় উৎসবে দুই বন্ধুকে নিয়ে গিয়েছিলেন ওমর। সেখানেই বাধে গোলমাল! ওমর এবং তাঁর বন্ধুদের উৎসব প্রাঙ্গণ ছাড়তে বাধ্য করা হয়। কারণ? আয়োজকদের যুক্তি ছিল, ‘বড্ড বেশি’ সুপুরুষ ওমরকে দেখে উপস্থিত মহিলাদের মনে যৌনচেতনা জেগে উঠতে পারে। দুবাইয়ে তাঁর রাস্তায় বার হওয়ার উপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। কারণ? তিনি প্রকাশ্যে এলে নাকি মহিলা গাড়ি-চালকের নজর রাস্তা থেকে সরে যাওয়ার সম্ভাবনা থেকে যাবে। বুঝুন, কী অবস্থা!

Arshad Khan Kusum Shrestho Omar Barkan
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -