SEND FEEDBACK

English
Bengali

ঠেকে শিখলেন মোদী। একটি নামই জপ করছেন তিনি

সম্বিত পাল, এবেলা.ইন | জানুয়ারি ৭, ২০১৭
Share it on
জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকে বার বার জোর দিলেন একটি বিষয়েই। মনে রাখতে বললেন সবাইকে।

নোট বাতিলের পরেই বিরোধীরা মাঠে নেমে পড়েছিল নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে। তাদের বক্তব্য ছিল, মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্ত সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ বাড়াবে। ব্যাঙ্ক বা এটিএম-এর সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে সাধারণ গরিব-মধ্যবিত্ত মানুষকে। আর যাদের কালো টাকা আছে, তারা নিশ্চিন্তে ঠান্ডা ঘরের হাওয়া খাবে। কার্যক্ষেত্রে তাই দেখা গিয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য নেতারা দাবি করে গিয়েছেন কালো টাকা ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে এই লড়াইয়ে বড়লোকদের ঘুম ছুটি গিয়েছে। তাদের ব্যাঙ্ক বা এটিএম-এ লাইন দিতে না হলেও তাদেরই ক্ষতি হয়েছে। লাভবান হয়েছে দেশ।

কিন্তু এতেও বিরোধীদের থামানো যায়নি। তাদের লাগাতার বিরোধিতায় নাজেহাল হতে হয়েছে শাসক দলকে। বাতিল নোটের বেশির ভাগটাই ব্যাঙ্কে ফিরে আসতে দেখে মোদী সরকারও বোঝেন, কালো টাকা উদ্ধারের অভিযান সেভাবে সফল হয়নি। বিরোধীদের অভিযোগ, তাই নরেন্দ্র মোদী কালো টাকা ছেড়ে ডিজিটাল লেনদেন, নগদহীন লেনদেনের কথা বলতে শুরু করেন।

নোটবাতিলে বহু অংসগঠিত শিল্পের শ্রমিক কাজ হারান, কৃষিক্ষেত্রেও এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে, ছোট ব্যবসায়ীরাও বিপাকে পড়েন। বিরোধীরা আরও অভিযোগ করেন, নগদহীন লেনদেন দেশের গরিব জনগণের জন্য নয়। শুধু বিরোধী নেতাদের নয়, নিচুতলার ক্ষোভের কথা বুঝতে পেরে এর পরেই নিজের ‘গরিব-বিরোধী সরকারের’ তকমা ঝেড়ে ফেলতে উঠে পড়ে লাগেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন:—

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব মমতার। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জবাব দিলেন জেটলি

তথ্য দিয়ে জেটলি প্রমাণ করলেন, ডিজিটাল লেনেদেনে তৈরি ভারত

বর্ষশেষের সন্ধ্যায় কৃষক, গরিব ও ছোট ব্যবসায়ীদের জন্য নানা প্রকল্প ঘোষণা করা যদি শুরু হয়ে থাকে, শনিবার বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকে মোদীর গরিবদের জন্য কাজ করাকেই দলের মূল থিম বানিয়ে দেন।

বৈঠকের সমাপ্তি ভাষণে মোদী বার বার গরিবদের কথাই বলেন। তাঁর ভাষণের বিষয়বস্তুর কথা বলতে গিয়ে বিজেপি নেতা রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, কিছু অসুবিধা সত্ত্বেও যে গরিব মানুষেরা প্রধানমন্ত্রীর আবেদনে সাড়া দিয়ে স্বেচ্ছায় নোট বাতিলের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছেন, তাঁদের নরেন্দ্র মোদী কুর্নিশ জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বলেন, আমাদের অগ্রাধিকার গরিব ও  অনগ্রসর মানুষের জীবনের মান উন্নত করা। দলের নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, মনে রাখবেন, গরিবদের কল্যাণে কাজ করা মানে ভগবানের সেবা করা। তিনি নিজেও গরিব পরিবার থেকে উঠে এসেছেন এ কথা মনে করিয়ে মোদী নেতাদের বলেন, তাঁরা যেন কোনও সমালোচনা বা অভিযোগে ভয় না পান।

মোদী বলেন, কালো টাকা ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে নোট বাতিল দীর্ঘস্থায়ী একটি পদক্ষেপ। আমাদের সাংগঠনিক শক্তি দিয়ে গরিব মানুষদের মন জয় করতে হবে।  

নোট বাতিলের পরে, ও পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনের আগে মোদীর গরিবী নিয়ে এতো জোর দেওয়ার বিষয়টি থেকে বিরোধীরা মনে করতেই পারেন, ‘মোদী সরকার ‘স্যুট-বুটের সরকার’, ‘বড়লোকের সরকার’— এই প্রচারের চাপেই মোদী এভাবে এতবার ‘গরিব’-নাম জপ করতে বাধ্য হচ্ছেন। যেটা আগে এতটা দেখা যায় নি। 

তবে রবিশঙ্কর প্রসাদ এ-ও মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, প্রধানমন্ত্রী কিন্তু বলেছেন, আমাদের জন্য গরিব বা গরিবীর কথা বলা শুধু নির্বাচন জেতার লক্ষ্যে নয়। এটা দরিদ্রদের সেবা করার একটা সুযোগ।

Narendra Modi BJP National Executive Demonetisation Assembly Elections
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -