SEND FEEDBACK

English
Bengali

বিশ্বব্যাঙ্কের কাছে গলাধাক্কা, সিন্ধু জলচুক্তি নিয়ে এবার কী করবে পাকিস্তান?

নিজস্ব প্রতিবেদন, এবেলা.ইন | ডিসেম্বর ১৭, ২০১৬
Share it on
উরি সন্ত্রাসের পরে নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেছিলেন, সিন্ধু জলচুক্তি মানবে না ভারত। পাকিস্তান সন্ত্রাস দিয়ে ভারতকে মারতে চায়, বদলে জল না দিয়ে পাকিস্তানকে মারবে ভারত। এমন কথাও বলেছিলেন মোদী।

১৯৬০ সালে স্বাক্ষরিত হয়েছিল সিন্ধু জলচুক্তি। এই চুক্তি অনুযায়ী সিন্ধু উপত্যকায় ভারত পূর্বমুখী বিপাশা, রাভি, শতদ্রু নদীর নিয়ন্ত্রণ পায়। আর পাকিস্তান পশ্চিমমুখী সিন্ধু, চেনাব এবং ঝিলম নদীর নিয়ন্ত্রণ পায়। এই চুক্তি ঠিকঠাক সম্পাদনের জন্য তৈরি হয় স্থায়ী সিন্ধু কমিশন। তাতে দু’দেশের প্রতিনিধিদের রাখা হয়। কিন্তু, সম্প্রতি এই সিন্ধু জলচুক্তিতে দু’দেশের মধ্যে মতানৈক্য তৈরি হয়েছে। কিষাণগঙ্গা এবং চেনাব নদীর উপরে ভারতের দু’টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প তৈরি করছে। এই জলবিদ্যুৎ প্রকল্প সিন্ধু জলচুক্তিকে লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ করেছে পাকিস্তান। 

এই নিয়ে অশান্তি চরমে ওঠে উরি সন্ত্রাসের প্রেক্ষিতে মোদীর হুঁশিয়ারির পর। প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছিলেন, ‘সিন্ধু চুক্তিকে ভারত মানবে কি না তা এবার ভেবে দেখার সময় এসেছে।’ এমনকী, পাকিস্তানকে জল না দেওয়ারও হুমকি দিয়েছিলেন মোদী। আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক মহলও মোদীর হুমকিতে আতঙ্কগ্রস্ত হয়েছিল। সিন্ধু জলচুক্তিতে দু’দেশের মধ্যে যুদ্ধ লেগে যেতে পারে, এমন সম্ভাবনাও দেখছিল আন্তর্জাতিক দুনিয়া। 

সিন্ধু জলচুক্তি যাতে ভারত মানে তার জন্য বিশ্ব ব্যাঙ্কের কাছে কোর্ট অফ আরবিট্রেশন-এর চেয়ারম্যান নিয়োগের দাবি জানায়। ভারত আবার সমস্যা সমাধানের জন্য যাতে নিরপেক্ষ মধ্যস্থতাকারীকে নিয়োগ করা হয় তার জন্য বিশ্ব ব্যাঙ্কের কাছে আবেদন রাখে। কোর্ট অফ আরবিট্রেশন-এ যাওয়ার জন্য পাকিস্তান একটা চরম পথ বেছেছিল। সেই তুলনায় ভারতের প্রস্তাবিত নিরপেক্ষ মধ্যস্থতাকারী নিয়োগ ছিল অনেক সহজ এবং শান্তিপূর্ণ উদ্যোগ। দু’দেশই বিশ্বব্যাঙ্কের দ্বারস্থ হয়েছিল কারণ ভারতের তৈরি দু’টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের টাকা দিচ্ছিল বিশ্বব্যাঙ্ক। 

তবে, বিশ্বব্যাঙ্ক যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাতে পাকিস্তান গলাধাক্কা খেয়েছে বলেই মনে করছে আন্তর্জাতিক মহল। কারণ, বিশ্বব্যাঙ্ক জানিয়েই দিয়েছে, পাকিস্তানের প্রস্তাব মানা সম্ভব নয়। ভারত যদি পাকিস্তানকে জল দেওয়া বন্ধ করে দেয়, তা হলে সেখানে বিশ্বব্যাঙ্কের কিছু করার নেই। তাই পাকিস্তানের উচিত ভারতের সঙ্গে আলোচনা করে একটা সহজ এবং শান্তিপূর্ণ রাস্তা খুঁজে বের করা। 

এদিকে, বিশ্বব্যাঙ্কের এই ঘোষণার পরই পাকিস্তান জানিয়েছে তাঁরা সিন্ধু জলচুক্তিতে কোনও পরিবর্তন চায় না। তারা পুরনো জলচুক্তি মানার পক্ষে। ভারত জলচুক্তি নিয়ে যে বার বার আলোচনার কথা বলে এসেছে, তা আসলে সময় কেনার কৌশল ছাড়া আর কিছুই নয়। কারণ, ভারত কৌশলে সময় কিনে নিয়ে কিষাণগঙ্গা এবং চেনাবের উপর নির্মীয়মাণ দু’টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করে নিতে চাইছে। তাই পাকিস্তানের বক্তব্য, তাঁরা ভারতের পাতা ফাঁদে পা দিতে আর রাজি নয়। তারা চায় ভারত ১৯৬০ সালে সম্পাদিত হওয়া সিন্ধু জলচুক্তিকেই মেনে নিক। যদিও, এই নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া এখনও দেয়নি ভারত। 

Indus Water Treaty Pakistan India World Bank Surgical Strike
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -