SEND FEEDBACK

English
Bengali

দীপার জন্য কোচের ভাবনায় নতুন ভল্ট প্রোদুনোভা হাফটার্ন, আসছে রুশ বিশেষজ্ঞ

সুদীপ পাকড়াশী | অগস্ট ২৯, ২০১৬
Share it on
দু’সপ্তাহ পর ট্রেনিং শুরু করবেন দীপা। আগরতলায় নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আঞ্চলিক কোচিং সেন্টারে ত্রিপুরা সরকার এবং কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রকের দেওয়া টাকায় বসছে জিমন্যাস্টিক্সের আধুনিক যন্ত্রপাতি।

ছাত্রীর জন্য নতুন ভল্ট আবিষ্কার করার স্বপ্ন তিনি দেখতে শুরু করেছিলেন ১৯ এপ্রিলের পর থেকেই! যেদিন রিওতে অলিম্পিক্সের টেস্ট ইভেন্টে প্রোদুনোভা ভল্টে সোনা জিতে দীপা কর্মকার প্রথম ভারতীয় মহিলা জিমন্যাস্ট হিসাবে অলিম্পিক্সে নামার যোগ্যতা অর্জন করেছিলেন।
সেই ঘটনার চার মাস পর, ২৮ অগস্ট দীপার কোচ বিশ্বেশ্বর নন্দী জানিয়ে দিলেন, দীপার জন্য নতুন ভল্টের নকশা তিনি ইতিমধ্যে করে ফেলেছেন। সেই ভল্টের নাম হতে পারে প্রোদুনোভা হাফ-টার্ন! রবিবার হায়দরাবাদ থেকে ফোনে বিশ্বেশ্বর বললেন, ‘‘প্রোদুনোভা ভল্টে শূন্য থেকে দু’টো সমারসল্ট দিয়ে সোজা ল্যান্ডিং করতে হয়। নতুন এই ভল্টেও দীপা সোজা ল্যান্ডিং করবে। কিন্তু নামার আগে দু’টো সমারসল্ট দেওয়ার পর একটা হাফ-টার্ন করে ল্যান্ডিং করতে হবে! নাম এখনও ঠিক করিনি। তবে প্রোদুনোভা হাফ-টার্ন হতে পারে।’’ নতুন ভল্ট সম্পর্কে কোচ জানালেন, এই ভল্টে টেবিল থেকে জাম্প করে শরীরটাকে আরও উঁচুতে তুলতে হবে। যাতে ল্যান্ডিংয়ের আগে হাফ-টার্ন দেওয়ার সময়টা পায়। এককথায় এটা আরও কঠিন ভল্ট হতে চলেছে।’’ 
তবু বিশ্বেশ্বরের আশা, দীপা নতুন এই ভল্টও রপ্ত করে ফেলবেন। কোচ বললেন, ‘‘২০১৮ কমনওয়েলথ গেমস ও এশিয়ান গেমসেই প্রোদুনোভা হাফ-টার্ন ভল্ট দিয়ে দীপা পদক পাবে, আমি ভাবছি না। আমার আশা টোকি‌ও অলিম্পিক্সে এই ভল্ট ও দেখাতে পারবে। কারণ এটা রপ্ত করতে সময় লাগবে।’’ 
একইসঙ্গে দীপার মুভমেন্টকে আরও ছন্দোবদ্ধ করে তোলার জন্য রাশিয়া থেকে কোরিওগ্রাফার আনবেন বিশ্বেশ্বর! এই প্রসঙ্গে তাঁর বক্তব্য, ‘‘জিমন্যাস্টিক্সে প্রত্যেকটি ইভেন্টে আলাদাভাবে শুধু ছন্দের জন্য দশ পয়েন্ট থাকে। বিচারকরা অন্য জিনিসগুলোর সঙ্গে এটাও দেখেন যে, শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত প্রতিযোগীর মুভমেন্টে ছন্দটা ঠিক থাকল কি না। সিমোন বাইলসের মতো সেরা জিমন্যাস্টের অন্যতম সেরা অস্ত্র তাদের নিখুঁত ও ছন্দোবদ্ধ মুভমেন্ট।’’ কোচ জানালেন, অলিম্পিক্সের টেস্ট ইভেন্টে ছন্দে কিন্তু দীপা দশে দশ পাননি। তাই বিশ্বেশ্বরের মন্তব্য, ‘‘রুশ কোরিওগ্রাফারের কাছে এবার দীপা জিমন্যাস্টিক্সের ছন্দটা তৈরি করবে। তাতে এশিয়ান গেমস বা অলিম্পিক্সের মতো বড় ইভেন্টে ওর পয়েন্ট আরও বাড়বে।’’ দু’সপ্তাহ পর ট্রেনিং শুরু করবেন দীপা। আগরতলায় নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আঞ্চলিক কোচিং সেন্টারে ত্রিপুরা সরকার এবং কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রকের দেওয়া টাকায় বসছে জিমন্যাস্টিক্সের আধুনিক যন্ত্রপাতি। তাই বিদেশে গিয়ে ট্রেনিং করার পূর্ব পরিকল্পনা আপাতত বাতিল করেছেন তাঁরা।
সোমবার নয়াদিল্লতে রাষ্ট্রপতির হাত থেকে বিশ্বেশ্বর নেবেন দ্রোণাচার্য পুরস্কার আর দীপা নেবেন রাজীব খেলরত্ন। তার আগে রবিবার রিওতে দুই পদকজয়ী পি ভি সিন্ধু, সাক্ষী মালিকের সঙ্গে সিন্ধুর কোচ পুল্লেলা গোপীচন্দ আর দীপা কর্মকারকেও বিএমডব্লিউ গাড়ি উপহার দিলেন হায়দরাবাদ জেলা ব্যাডমিন্টন সংস্থার প্রেসিডেন্ট চামুণ্ডেশ্বরনাথ। আর দীপাদের হাতে গাড়ির চাবি তুলে দেন সচিন তেন্ডুলকর। বিশ্বেশ্বর যেন বেশি উচ্ছ্বসিত সচিনের উপস্থিতিতে! বললেন, ‘‘সচিন তেন্ডুলকরের মতো ক্রীড়াব্যক্তিত্ব যখন অনুষ্ঠানের পর জানালেন দীপার কাছে আমার কথা শুনে তিনি মুগ্ধ, তখন মনে হল এটাই হয়তো আসল প্রাপ্তি!’’ 

Dipa Karmakar Bisheshwar Nandi
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -