SEND FEEDBACK

English
Bengali

এই সেনার কথা মনে করলে গোটা দেশ টাকার লাইনে দাঁড়ানোর কষ্ট ভুলবে

নিজস্ব প্রতিবেদন | নভেম্বর ১৫, ২০১৬
Share it on
দেশের এই সেনা যদি বাঁচার জন্য বরফের নীচে ছ’ দিন অপেক্ষা করতে পারেন, তাহলে গোটা দেশের উচিৎ তাঁকে অনুসরণ করা।

গোটা দেশের জন্য নতুন বার্তা দিলেন ভারতের প্রাক্তন ওপেনার বীরেন্দ্র সহবাগ। হঠাৎ ‘নজফগড়ের নবাব’ গোটা দেশকে শান্ত থাকার পরামর্শই বা দিতে গেলেন কেন? গোটা দেশ এখন অশান্তই বলা যায়। কারণ একটাই। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত। মোদীর সিদ্ধান্ত নিয়ে ময়নাতদন্ত হচ্ছে। বিরোধীরা সমালোচনা করছে। মোদীর অবশ্য তাতে কিছু এসে যায় না। তিনি নিজের সিদ্ধান্তে অনড়। তিনি দেশের উন্নতি করার মন্ত্রে নিয়োজিত। প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত দেশের উন্নতি করবে বলেই আমজনতার বিশ্বাস। তবে সময় দিতে হবে প্রধানমন্ত্রীকে। এই সময়টাই তো অনেকে দিতে চাইছেন না মোদীকে। অধৈর্য হয়ে পড়ছেন মানুষজন। ভারতের বাঁ হাতি অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা টুইট করে মোদীর পাশে দাঁড়িয়েছেন। টুইটে তিনি লিখেছিলেন, ‘টাকা বদলাতেই মানুষের কষ্ট হচ্ছে। তাহলে দেশ বদলাতে নরেন্দ্র মোদীজির কতটা কষ্ট হচ্ছে বলুন তো?’

সহবাগের সেই টুইট। 

জাদেজার সুরে অবশ্য টুইট করেননি সহবাগ।

তিনি আবার দুর্দান্ত টুইট করার জন্য জনপ্রিয়। গোটা দেশকে অধৈর্য না-হওয়ার জন্য সহবাগ যে উপায় বাতলালেন তা এককথায় অবিশ্বাস্য। উদাহরণ হিসেবে শহিদ হনুমানথাপ্পার প্রসঙ্গ উত্থাপ্পন করেছেন সহবাগ। গোটা দেশ এখনও হনুমানথাপ্পার কথা উঠলেই মাথা নওয়ায়। মোদী পর্যন্ত হনুমানথাপ্পার মৃত্যুতে গভীর শোকাহত ছিলেন। সেই মৃত শহিদের প্রসঙ্গ তুলে সহবাগ টুইট করেছেন, ‘৩৫ ফিট বরফের নীচে, -৪৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় ছ’ দিন অপেক্ষা করেছিলেন শহিদ হনুমানথাপ্পা। দেশের জন্য কয়েক ঘন্টা আমরা নিশ্চয়ই লাইনে অপেক্ষা করতে পারব।’ 

ল্যান্স নায়েক দেশের বীর সেনা। বরফের নীচে ছ’দিন তিনি বেঁচে ছিলেন। তঁকে উদ্ধারও করা হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ল্যান্স নায়েকের লড়াইটা থেমে যায়। ল্যান্স নায়েকের স্ত্রী বলেছিলেন, ‘পরের বার আমার জীবনটা নিয়ে নিও।’ চিকিৎসকরা প্রাণপন চেষ্টা করেছিলেন ল্যান্স নায়েককে বাঁচানোর। কিন্তু তাঁদের সেই চেষ্টা সফল হয়নি। বীরেন্দ্র সহবাগ দেশের এই পরিস্থিতিতে ল্যান্স নায়েকের উদাহরণ টেনে আনলেন। এই বীর সেনা যদি পারেন, তাহলে গোটা দেশ কেন পারবে না। সহবাগের কথা কি দেশের মানুষ মেনে চলবেন? এটাই তো এখন লাখ টাকার প্রশ্ন।  

Virender Sehwag Lance Naik
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -