SEND FEEDBACK

English
Bengali

শুধু টুইট করে এক মাসে ৩০ লক্ষ টাকা উপার্জন করেছেন সহবাগ। জেনে নিয়ে লেগে পড়ুন আপনিও

নিজস্ব প্রতিবেদন, এবেলা.ইন | জানুয়ারি ৯, ২০১৭
Share it on
সব সময়ে ভক্তদের মনোরঞ্জনের জন্যই যে সহবাগ টুইট করেন, এমনটা কিন্তু নয়। সেটা তাঁর প্রধান উদ্দেশ্য হলেও কখনও-সখনও টুইটের মাধ্যমে উপার্জনও করেন তিনি। জেনে নিন কীভাবে।

স্যোশাল মিডিয়ায় বেশ জনপ্রিয় বীরেন্দ্র সহবাগ। দেশের সাফল্যে কিংবা সুদিনে তাঁর মজা, শুভেচ্ছাবার্তা যেমন ভক্তদের মন জয় করে নেয়, তেমনই দেশের খারাপ সময়েও স্যোশাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে সরব হয়ে ওঠেন তিনি। এক সময় মাঠে বীরুর খেলা দেখে মুগ্ধ হত মানুষ। এখন স্যোশাল মিডিয়ায় তাঁর টুইট পড়ার জন্য মুখিয়ে থাকেন ভক্তরা। তবে সব সময়ে ভক্তদের মনোরঞ্জনের জন্যই যে সহবাগ টুইট করেন, এমনটা কিন্তু নয়। সেটা তাঁর প্রধান উদ্দেশ্য হলেও কখনও-সখনও টুইটের মাধ্যমে উপার্জনও করেন তিনি। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সম্প্রতি এমন কথাই জানিয়েছেন সহবাগ। এক মাসে তিরিশটি টুইটের মাধ্যমে ৩০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত উপার্জন করেছেন সহবাগ। আর বলতে গেলে, তা একেবারে ঘরে বসেই।

সবটাই কিন্তু তিনি করেছেন প্রতিভার বলে। কোনও অসদুপায় অবলম্বন করেননি এর জন্য। মাঝেমধ্যেই স্যোশাল মিডিয়ায় যে সব পোস্ট দেখা যায়, অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য এই লিঙ্কে ক্লিক করুন, তাঁর অধিকাংশই ভুয়ো হয়। বলা বাহুল্য, সে ফাঁদেও পা দেননি বীরু। এ বার নিশ্চয়ই কৌতুহল হচ্ছে, তবে কী ভাবে এত টাকা রোজগার করলেন তিনি? সহজে বলা যায়, রোজগার করলেন তাঁর জনপ্রিয়তার কারণে। তাঁর স্যোশাল মিডিয়ায় করা পোস্টগুলো যে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পায় ভক্তদের মধ্যে, তা নজর এড়ায়নি দেশের বেশ কিছু প্রভাবশালী ব্র্যান্ডের। সেই ব্র্যান্ডের শীর্ষকর্তারা উপলব্ধি করেন, তাঁদের পণ্য-পরিচিতি ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার এ এক অভিনব পন্থা হতে পারে। সেই মতো তাঁরা সহবাগের সঙ্গে চুক্তি করেন, যাতে সহবাগ তাঁদের পণ্য নিয়ে এমন সব টুইট করেন, যা জনপ্রিয় হয়। আর মজাদার টুইট করা তো সহবাগের বাঁ-হাতের খেল। ব্যস, আর দেখে কে! শুধু টুইট করেই রোজগার করতে লাগলেন তিনি।

সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সহবাগ জানিয়েছেন, ‘যখন খেলতাম, সেই সময়ে ড্রেসিংরুমে নানা রকম মজা করতা্ম সতীর্থদের সঙ্গে। পরবর্তীকালে যখন স্যোশাল মিডিয়ায় আসি, সেই মজাগুলোই আমার ভক্তদের সঙ্গে শেয়ার করতাম। সেগুলো যে এত জনপ্রিয়তা পাবে, তা আমিও ভাবিনি। এর জেরে স্যোশাল মিডিয়ায় আমার ভক্তের সংখ্যাও অনেক বেড়ে গিয়েছে।’

অর্থাৎ বোঝাই যাচ্ছে, সহবাগের পদ্ধতিতে অর্থ উপার্জন করতে হলে প্রথমে সহবাগের উচ্চতায় পৌঁছতে হবে। তাঁর মতো জনপ্রিয় হলে সহজেই খুলে যাবে উপার্জনের রাস্তা। তাই সেই লক্ষ্য নিয়ে লেগে পড়ুন আজ থেকেই।

Virender Sehwag Social Media Twitter
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -