SEND FEEDBACK

English
Bengali

ম্যাথু ব্ল্যাকমেল করেছেন। নাম না করে বললেন মমতা

নিজস্ব সংবাদদাতা | জুন ১৯, ২০১৬
Share it on
নারদ-কাণ্ডে নাম না করে ‘নারদনিউজ ডটকমে’র সিইও ম্যাথু স্যামুয়েলের বিরুদ্ধে ‘ব্ল্যাকমেল’ করার অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে গোপন ক্যামেরা অভিযানের তদন্তের দায়িত্ব দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘‘পুলিশকে আইনমতো ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড অ্যাকশন— পুরোটারই দায়িত্ব নিতে বলা হয়েছে।’’

নারদ-কাণ্ডে নাম না করে ‘নারদনিউজ ডটকমে’র সিইও ম্যাথু স্যামুয়েলের বিরুদ্ধে ‘ব্ল্যাকমেল’ করার অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে গোপন ক্যামেরা অভিযানের তদন্তের দায়িত্ব দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘‘পুলিশকে আইনমতো ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড অ্যাকশন— পুরোটারই দায়িত্ব নিতে বলা হয়েছে।’’ শনিবার নেতাজি ইন্ডোরে দলের কর্মশালায় সেই ঘোষণার অর্থ বুঝিয়ে মমতা বলেছেন, ‘‘স্টিং মানে কী! সে ওটা তুলে নিয়ে বলছে, পাঁচ কোটি টাকা দাও! তাহলে এটা আটকে দেব। নাহলে এটা চালিয়ে দেব! তার মানে ব্ল্যাকমেলিং পলিটিক্স করছে। ব্ল্যাকমেলিং করে তারা কত কোটি টাকা বাজার থেকে তুলেছে, এটা আপনাদের জানা উচিত। এসব কত কী খেলা চলেছে! সব খুঁজে বার করব। স্টিং অপারেশন করার তাঁর লাইসেন্স ছিল কি না, এসব কথাগুলোও আসবে। সেজন্যই তদন্ত করেছি। কারা কারা এর মধ্যে আছে জানতে চাই। কেঁচো খুঁড়তে সাপ বেরিয়ে যাবে। একটা কথা বলে না, ঘুঁটে পোড়ে গোবর হাসে?’’
ম্যাথু অবশ্য মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যকে ‘ভিত্তিহীন’ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁর কথায়, ‘‘উনি ঘনঘন নিজের অবস্থান বদলাচ্ছেন। প্রথমে বলেছিলেন, ভিডিও ফুটেজ জাল। তারপর বিদেশের টাকা। তারপর ষড়যন্ত্র। আর এখন ব্ল্যাকমেলিং! আমি কারও কাছে কোনও টাকা চাইনি। এসব ভিত্তিহীন অভিযোগ।’’ ম্যাথুর দাবি, ভিডিও ফুটেজ যে আসল, তা বুঝতে পেরে সাফাইয়ে আগাম যুক্তি দিয়ে রাখলেন মমতা।
তৃণমূলের রাজনৈতিক কর্মশালায় মমতার বক্তৃতার অনেকটা অংশ জুড়েই ছিল নারদ-কাণ্ড। সারদা কেলেঙ্কারির পরে নারদনিউজের গোপন ক্যামেরা অভিযানে দলের একঝাঁক সাংসদ-মন্ত্রী-বিধায়কের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার অভিযোগে চাপে পড়ে গিয়েছিল তৃণমূল। তখন প্রাথমিকভাবে অভিযুক্তদের পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন তৃণমূলনেত্রী। এদিনও তিনি বলেন, ‘‘সারদা থেকে নারদা! তৃণমূল কারও কাছে টাকা নিয়ে এসব করে না। আমি তোমার কাছে টাকা চাইনি। তুমি আমার কাছে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে দেখা করতে চাইলে। দেখা করতে চেয়ে তুমি আমার টেবিলে কিছু টাকা রেখে দিচ্ছ! দিয়েই ছবি তুলে বলছ, ঘুষ নিচ্ছিল! তোমার কাছে তো আমি যাইনি? তুমি কেন এসেছিলে আমার বাড়িতে?’’ প্রসঙ্গত, ভোটের সময় কলকাতা সফরে এসে ম্যাথু বলেছিলেন, ‘‘আমার কাজ ছিল খবর করা। আমি সেটাই করেছি।’’ এদিন সেই খবরের ‘উদ্দেশ্য’ নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন মমতা। 
আর মমতার বক্তব্যের ভিত্তি নিয়ে পাল্টা প্রশ্ন তুলে ম্যাথু বলেছেন, ‘‘সমস্ত অ্যাপয়েন্টমেন্ট তাঁর দলের নেতা (ইকবাল আহমেদ) এবং মির্জা (বর্ধমানের তৎকালীন পুলিশ সুপার) ঠিক করে দিয়েছিলেন। আমি কেন যাচ্ছি, তা যাঁরা টাকা নিয়েছেন, তাঁরা আগে থেকে জানতেন। কথোপকথনে তাঁর দলের সাংসদ-মন্ত্রীরাই দাবি করেছিলেন, দিদি টাকা নেন। অভিষেকের (বন্দ্যোপাধ্যায়) জন্য টাকার ব্যবস্থা উনি (মমতা) করে দেন— এ দাবি তো আমি করিনি!’’ প্রসঙ্গত, গোপন ক্যামেরা অভিযানে মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ওই কথা বলতে শোনা গিয়েছিল। তবে ফুটেজের ‘সত্যতা’ যাচাই করেনি ‘এবেলা’।
নারদ-কাণ্ডে অভিযুক্ত একডজন নেতা-মন্ত্রী-সাংসদের মধ্যে দলীয় কর্মশালায় এদিন দু’জনের নাম করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। একজন শুভেন্দু অধিকারী। অন্যজন ফিরহাদ হাকিম। তালিকা দীর্ঘ হলেও বিশেষত ওই দু’জনের নামের উল্লেখ ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ বলে মনে করছেন তৃণমূলের নেতাদের একাংশ। মমতার কথায়, ‘‘শুভেন্দু অধিকারী খেতে পায় না? তাকে দেড় লক্ষ টাকা নিয়ে সংসার চালাতে হবে? ইলেকশন করতে হবে? ফিরহাদ হাকিম খেতে পায় না? দু’লক্ষ টাকা ডিমান্ড করে নিতে হবে? আমি জানতে চাই, তোমরা কী কেউ টাকা চেয়েছিলে? ওরা বলেছে, তদন্তে যথেষ্ট সহযোগিতা করবে। তাদের পরিবার-পরিজনেরও যথেষ্ট সম্মানহানি হয়েছে।’’ 
বস্তুত, এদিন নারদ-কাণ্ডের অভিজ্ঞতাকে সামনে রেখেই আগামিদিনে দলীয় কর্মীদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন মমতা। তাঁর কথায়,  ‘‘ধরুন, আমি বাইরে যাচ্ছি। এয়ারপোর্টে শুধু হেঁটে বেড়াই! কেন জানেন? কখন কে এসে বলবে, একটা ছবি তুলব! আমি তো ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী নয়, যে ঘরে বসে থাকব! আমি পুজো প্যান্ডেলে গেলাম। পুজো প্যান্ডেলের লোক ঠিক করবে, সেখানে কে থাকবে। ছ’টা লোক আছে। আমি তো আমাকে ছাড়া কাউকে চিনি না! পাঁচটা লোক কারা, আমার পক্ষে আইডেন্টিফাই করা সম্ভব নয়। হঠাৎ করে একজনকে বসিয়ে রাখছে। বসিয়ে রেখে বলছে, ও তো চোর! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও চোর!’’

Mamata Banerjee Mathew Samuels Narada
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -