SEND FEEDBACK

English
Bengali

বিরোধী দলনেতার নাম নিয়ে আলোচনা শুরু প্রদেশ কংগ্রেসে

নিজস্ব সংবাদদাতা | মে ২১, ২০১৬
Share it on
ফল ভাল হলেও বিধানসভায় পরিষদীয় নেতা নিয়ে টানাপড়েন শুরু হয়েছে কংগ্রেসে। প্রাথমিক আলোচনায় মানস ভুঁইয়ার নাম ঘোরাফেরা করলেও তাঁর নাম চূড়ান্ত হওয়া নিয়ে গভীর সংশয় রয়েছে দলের অন্দরে। প্রদেশ কংগ্রেসের ক্ষমতাসীন গোষ্ঠীর সঙ্গে দূরত্বের কারণেই তাঁর পথে বাধা দেখছেন দলের অনেকে।

ফল ভাল হলেও বিধানসভায় পরিষদীয় নেতা নিয়ে টানাপড়েন শুরু হয়েছে কংগ্রেসে। প্রাথমিক আলোচনায় মানস ভুঁইয়ার নাম ঘোরাফেরা করলেও তাঁর নাম চূড়ান্ত হওয়া নিয়ে গভীর সংশয় রয়েছে দলের অন্দরে। প্রদেশ কংগ্রেসের ক্ষমতাসীন গোষ্ঠীর সঙ্গে দূরত্বের কারণেই তাঁর পথে বাধা দেখছেন দলের অনেকে। 
জোটের ফল প্রত্যাশার ধারেকাছে না পৌঁছলেও কংগ্রেসের ফল খারাপ হয়নি। ৪৪টি আসন পাওয়ায় প্রধান বিরোধী দলের স্বীকৃতি তাদের জন্য নিশ্চিত। কংগ্রেসের পরিষদীয় দলের নেতাই বিধানসভার বিরোধী দলনেতা হবেন। তাই ফল প্রকাশের পরদিনই এই চর্চা শুরু হয়েছে। এই মুহূর্তে কংগ্রেসের বিধায়ক দলে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় মুখ অবশ্যই মানস। তবে এবারের নির্বাচনে দলের দুই অভিজ্ঞ নেতা আব্দুল মান্নান এবং শঙ্কর সিংহও নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁদের নামও আলোচনায় এসেছে। তবে দলের একটা অংশ মনে করছে, সাম্প্রতিক রাজনৈতিক তত্পরতার নিরিখে এই দৌড়ে মানসই এগিয়ে। নাম উঠেছে আমতা থেকে নির্বাচিত অসিত মিত্রেরও। 
এই দৌড়ে অবশ্য দলের অভ্যন্তরীণ সমীকরণও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। কারণ, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর সঙ্গে তাঁর পূর্বসূরী মানসের সম্পর্ক মসৃণ নয়। দলের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে এই বিরোধ বহুবারই তিক্ততায় পৌঁছেছে। মুর্শিদাবাদের বিধায়কেরা যেহেতু দলে সংখ্যাগরিষ্ঠ তাই এই পদে অধীরের মতই কার্যত শেষ কথা। তাই অধীর না চাইলে বিরোধী দলনেতার পদে মানসের মনোনীত হওয়া কঠিন। মুর্শিদাবাদ থেকে এই পদের দাবিদার হতে পারেন বহরমপুরের বিধায়ক মনোজ চক্রবর্তী। অধীরের ‘অন্ধ অনুগামী’ হিসাবে পরিচিত মনোজ একাধিকবারের বিধায়ক। শুধু তাই নয়, কট্টর তৃণমূল বিরোধী হিসাবেও পরিচিতি আছে একসময় মন্ত্রিসভা ছেড়ে আসা মনোজের। 
এবারের বিধানসভায় পরিষদীয় দলকে ঐক্যবদ্ধ রেখে বিরোধী দলের ভূমিকা পালন যে কঠিন কাজ তা মেনে নিচ্ছেন দলের শীর্ষ নেতারা। বিশেষ করে বিধায়কদের এক ছাতার নীচে ধরে রেখে প্রবল শক্তিশালী শাসক শিবিরের সঙ্গে তাল রেখে এগনো সহজ নয়। ২০১১ সালে দলের প্রতীকে জিতে আসা ৪২ জন বিধায়কের ১০ জন তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন। সেই ভাঙন ঠেকাতে পারেননি তত্কালীন নেতৃত্ব। অধীরের নেতৃত্বের ফলে এবার সেই আশঙ্কা কম বলেই মনে করছেন দলের নেতারা। পাশাপাশি, পরিষদীয় রাজনীতিতে অভিজ্ঞতার কারণে মানসকে দলনেতা করা হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকবে বলেই আশা তাঁদের। বিধায়কদের সঙ্গে অধীরের বৈঠকে এই নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা হবে। 

Manash Bhuinya Congress Opposition
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -