SEND FEEDBACK

English
Bengali

রাজনৈতিক যোগ কি প্রমাণ করতে পেরেছে? রায় শুনে ‘পুলিশি হেনস্থা’ নিয়ে সরব হলেন নারদকর্তা

নিজস্ব সংবাদদাতা | মার্চ ১৭, ২০১৭
Share it on
নারদ-কাণ্ডে শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্ট সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেওয়ার পর তাঁর উপর পুলিশি হেনস্থা প্রসঙ্গে সরব হলেন ‘নারদনিউজ ডটকমে’র সিইও ম্যাথু স্যামুয়েল। প্রসঙ্গত, এদিন আদালত জানিয়েছে, পুলিশ মন্ত্রী-বিধায়কদের হাতের পুতুল হয়ে রয়েছে।

নারদ-কাণ্ডে শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্ট সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেওয়ার পর তাঁর উপর পুলিশি হেনস্থা প্রসঙ্গে সরব হলেন ‘নারদনিউজ ডটকমে’র সিইও ম্যাথু স্যামুয়েল। প্রসঙ্গত, এদিন আদালত জানিয়েছে, পুলিশ মন্ত্রী-বিধায়কদের হাতের পুতুল হয়ে রয়েছে। ঘটনাচক্রে, পুলিশমন্ত্রী  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই। 
আদালতের রায়কে স্বাগত জানিয়ে ম্যাথু এদিন বলেন, ‘‘গোপন ক্যামেরা অভিযানের ফুটেজ প্রকাশ্যে আসার পর কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে আমাকে হেনস্থা করা হয়। বন্ধুরা ডাকলেও আমি কলকাতাকে এড়িয়ে যাই। কারণ, রাষ্ট্রক্ষমতার অপব্যবহার হতে পারে। শ্লীলতাহানি, যৌন হেনস্থা, মাদক পাচারে অভিযুক্ত করার আশঙ্কা রয়েছে। আমাকে জেলে পাঠানোর সবরকম চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু পারেনি।’’ তাঁর আর্জি, নারদ-কাণ্ডে সবদিকই খতিয়ে দেখুক কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। ম্যাথুর মন্তব্য, ‘‘কারা অর্থ সাহায্য করেছিল, কীভাবে ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে, কীভাবে অভিযান শুরু করা হয়েছিল, সব দেখা হোক।’’ 
এদিন নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘যে লোকটা টাকা দিতে এসেছে, সেই তো অপরাধী! তার বিরুদ্ধে কিছু হল না! আমরা যখন একটা এফআইআর করে তদন্ত করতে গেলাম, আমাদের করতেই দেওয়া হল না। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হাইকোর্ট বলল, তদন্ত বন্ধ কর।’’ এ ব্যাপারে ম্যাথুর প্রতিক্রিয়া, ‘‘আমি মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কিছু বলতে চাইছি না। কারণ, এখানে কারও বিরুদ্ধে কোনও ষড়যন্ত্র নেই। সাংবাদিকতার ধর্ম মেনেই গোপন ক্যামেরা অভিযান করা হয়েছিল।’’
 এখানেই শেষ নয়। নারদকর্তার মন্তব্য, ‘‘কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আমার যোগাযোগ কি প্রমাণ করা গিয়েছে?   কোনও রাজনীতিবিদ বা দলের সঙ্গে  দেখা করেছি কি না, কলকাতা পুলিশ প্রমাণ করুক না! শেষে আমার ড্রাইভার রাধাকৃষ্ণণকে তলব করা হল। ও বেচারা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল। ওকে মামলা সংক্রান্ত কোনও প্রশ্ন করেনি। আমার কতজন বান্ধবী, আমি বার’এ যাই কি না, এসব প্রশ্ন করেছে!’’ 
প্রসঙ্গত, ‘নারদনিউজ ডটকমে’র গোপন ক্যামেরা অভিযানে বেশ কয়েকজন সাংসদ, মন্ত্রী এবং তৃণমূলনেতাকে টাকা নিতে দেখা গিয়েছিল। যদিও ওই ফুটেজের সত্যতা যাচাই করেনি ‘এবেলা’।

 

Mathew Samuel Narada
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -