SEND FEEDBACK

English
Bengali

দিদিকে সাহায্যে মুখিয়ে মোদী। রাজ্যে বিরোধিতা করবে বিজেপি

নিজস্ব সংবাদদাতা | মে ২৮, ২০১৬
Share it on
মুখ্যমন্ত্রী পদে দ্বিতীয়বার শপথ নেওয়ার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শুক্রবার টুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গের উন্নয়নের স্বার্থে মমতার সরকারের সঙ্গে তিনি একযোগে কাজ করতে মুখিয়ে আছেন।

রাজধর্ম এবং রাজনীতি—এই দ্বিমুখী কৌশল নিয়ে আগামী দিনে পশ্চিমবঙ্গে এগোতে চায় বিজেপি।
মুখ্যমন্ত্রী পদে দ্বিতীয়বার শপথ নেওয়ার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শুক্রবার টুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গের উন্নয়নের স্বার্থে মমতার সরকারের সঙ্গে তিনি একযোগে কাজ করতে মুখিয়ে আছেন। কলকাতায় রাজ্য বিজেপি আয়োজিত সাংবাদিক বৈঠকে মমতার সরকারকে যাবতীয় সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন শপথ-অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। যদিও নয়াদিল্লিতে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এদিন জানিয়েছেন, তৃণমূলের সরকারের বিরুদ্ধে বিজেপি’র আন্দোলন জারি থাকবে।
কলকাতায় রেড রোডে মমতার মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীকে টুইট করে শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রী। নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে মোদী লিখেছেন, ‘মমতা’জি এবং তাঁর টিমকে শপথ নেওয়ার জন্য অভিনন্দন। রাজ্যের উন্নয়নের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতে চাই’। 
বিধানসভা নির্বাচনের ফলপ্রকাশের পর তৃণমূলের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে এদিনের শপথ অনুষ্ঠান বয়কট করেছে রাজ্য বিজেপি। যদিও এদিন শপথ অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন জেটলি এবং কেন্দ্রীয় নগরোন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। শপথ অনুষ্ঠানের অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে জেটলি বলেন, ‘‘এ রাজ্যে রাজস্ব ঘাটতি রয়েছে। অর্থনৈতিকভাবে পশ্চিমবঙ্গকে বাড়তি সাহায্য করা হয়। সে সহায়তা বজায় থাকবে।’’
রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশের মতে, বিপুল জনসমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় ফেরা মমতার সঙ্গে সংঘাতের পথে যেতে চাইছেন না মোদী, জেটলিরা। বরং কেন্দ্র-রাজ্য সুসম্পর্ক এবং সমন্বয়ের মধ্য দিয়ে জাতীয় রাজনীতির সমীকরণের দিকটা খুলে রাখতে চাইছেন বিজেপি’র কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। কারণ, রাজ্যসভায় বিভিন্ন বিল পাশ করাতে তৃণমূলের সমর্থন প্রয়োজন হতে পারে মোদী সরকারের।
একদিকে, সংসদীয় রাজনীতির বাধ্যবাধকতার জন্য জাতীয়স্তরে মমতাকে যেমন পাশে রাখা দরকার, তেমনিই রাজ্যে সংগঠন বাড়াতে তৃণমূলের বিরোধিতাও করতে হবে বিজেপি’কে। সেকথা মাথায় রেখেই এদিন শপথ অনুষ্ঠান বয়কট করেছিলেন ৬, মুরলীধর সেন লেনের নেতারা। এদিন রাজ্য বিজেপি’র পাশে দাঁড়িয়ে অমিত বলেন, ‘‘জনমতকে সম্মান জানাতেই দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শপথ অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় এটা সৌজন্য। কিন্তু তাই বলে এই নয়, তৃণমূলের বিরুদ্ধে আন্দোলনের পথ থেকে বিজেপি সরে এসেছে। পশ্চিমবঙ্গে আমরা যতদিন না ক্ষমতা দখল করতে পারব, ততদিন আন্দোলন চলবে।’’ বিধানসভা নির্বাচনের ফলের পরে বিজেপি নেতৃত্ব মনে করছেন, রাজ্যে দলের শক্তিবৃদ্ধির সুযোগ রয়েছে। জেটলির কথায়, ‘‘পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে বামবিরোধী মানসিকতা তৈরি হয়েছে। রাজ্যে প্রধান বিরোধীদল হয়ে ওঠার সুযোগ আমাদের সামনে রয়েছে। রাজ্যে আমাদের উপস্থিতি আমরা ইতিমধ্যেই জানান দিয়েছি।’’  
শাসকদলের সন্ত্রাসের অভিযোগে এদিন একাধিক জেলায় বিক্ষোভ দেখিয়েছেন বিজেপি’র রাজ্য নেতৃত্ব। মমতার সরকারকে কেন্দ্রীয় সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিলেও হিংসা প্রসঙ্গে জেটলি জানিয়েছেন, রাজ্যে শান্তির জন্য শাসকদলকেই উদ্যোগী হতে হবে। রাজনৈতিক হিংসায় আহত রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের এক কর্মীকে দেখতে এদিন এস এস কে এম হাসপাতালে যান বাবুল। 

 

Narendra Modi Mamata Banerjee BJP TMC
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -