SEND FEEDBACK

English
Bengali

নেতারা চলে যাওয়ার পর তৃণমূলের ধর্নামঞ্চে ‘ছায়ামূর্তি’

নিজস্ব সংবাদদাতা | জানুয়ারি ১২, ২০১৭
Share it on
নেতারা চলে যাওয়ার পর ফাঁকা পড়ে থাকা ওই মঞ্চের দখল নিয়েছিলেন জীবিকার সন্ধানে আসা এক সব্জি বিক্রেতা। ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন, পেপে, মুলো, কুমড়ো, কড়াইশুঁটি, টমেটো, ওল, পেঁয়াজকলি, আলু এবং আরও কিছু সব্জির পসরা নিয়ে জমিয়ে বসেছিলেন ওই বিক্রেতা। বেশ কয়েকঘণ্টা ধর্নামঞ্চে সব্জি বিক্রি করেন তিনি।

‘ব্রিগেডে মিটিং শেষ, পড়ে থাকা ময়দানে। ছায়ামূর্তিরা আসে, জীবিকার সন্ধানে’।
নব্বইয়ের দশকে গেয়েছিলেন কবীর সুমন। 
মঙ্গলবার এক সব্জি বিক্রেতার মধ্যে ‘ছায়ামূর্তি’ খুঁজে পেয়েছেন রাজারহাটের অর্জুনপুরের বাসিন্দারা!
নোটবাতিলের বিরুদ্ধে প্রচারের জন্য অর্জুনপুরের চড়কতলা মোড়ে বাঁধা হয়েছিল তৃণমূলের ধর্নামঞ্চ। শাসকদলের স্থানীয় নেতারা সেখানে সকাল ১০টা থেকে টানা তিনঘণ্টা কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বক্তৃতা করেন। সিবিআই’য়ের ‘অপব্যবহার’ প্রসঙ্গেও চোখাচোখা শব্দে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কেন্দ্রের বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারকে আক্রমণ করেন তাঁরা।

নেতারা চলে যাওয়ার পর ফাঁকা পড়ে থাকা ওই মঞ্চের দখল নিয়েছিলেন জীবিকার সন্ধানে আসা এক সব্জি বিক্রেতা। ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন, পেপে, মুলো, কুমড়ো, কড়াইশুঁটি, টমেটো, ওল, পেঁয়াজকলি, আলু এবং আরও কিছু সব্জির পসরা নিয়ে জমিয়ে বসেছিলেন ওই বিক্রেতা। বেশ কয়েকঘণ্টা ধর্নামঞ্চে সব্জি বিক্রি করেন তিনি। 

এ প্রসঙ্গে এদিন তৃণমূলের এক স্থানীয় নেতা বলেন, ‘‘আমাদের ধর্নামঞ্চে একজন গরিব সব্জি বিক্রেতা সব্জি বিক্রি করলে আমাদের সম্মান বাড়ে। আমরা তাঁকে ধন্যবাদ জানাই। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গরিব মানুষের অধিকারের জন্য লড়াই করেন। এই ঘটনাই প্রমাণ করছে, গ্রামের গরিব মানুষ আমাদের সঙ্গে রয়েছেন।’’

TMC Vegetable seller
Share it on
আরও যা আছে
আরও খবর
ওয়েবসাইটে আরও যা আছে
আরও খবর
আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -