SEND FEEDBACK

Cancel
English
Bengali
Cancel
English
Bengali
হক কথা

সেলফিবাজদের মুখে ঠিক কত ঘা জুতো মারছে এই ছবি, বুঝে নিন পাক্কা হিসেব

ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৯
```` Comments
এ ছবি ফোটোশপড নয়। হওয়ার কথাও নয়। এ ছবি ভারতের ভবিতব্য। মোবাইল সভ্যতার মুখে এই ছবি এক বড়সড় তমাচা।

ক’দিন ধরেই ভাইরাল। পেজ থেকে পেজান্তরে শেয়ার হয়ে চলেছে এই ছবি। এতটাই গম্ভীর পরিস্থিতি যে, স্বয়ং অমিতাভ বচ্চনও টুইট করতে বাধ্য হয়েছেন। তাঁর মতে অবশ্য এই ছবি ফোটোশপড। কিন্তু টুইটেই খ্যাতনামা চিত্রগ্রাহক অতুল কাসবেকর জানিয়েছেন, তা নয়। তিনি তিন জন বিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলে জেনেছেন এই ছবি এক্কেবারে জেনুইন।

না। এ ছবি ফোটোশপড নয়। হওয়ার কথাও নয়। এ ছবি ভারতের ভবিতব্য। মোবাইল সভ্যতার মুখে এই ছবি এক বড়সড় তমাচা। সেলফি-সর্বস্ব প্রজন্মের সামনে এ ছবি এক সুবিশাল অন্তর্ঘাত। 

পাঁচটি শিশু। তাদের একজনের হাতে মোবাইলের কায়দায় ধরা এক পাটি চপ্পল। আর তাতেই যেন ‘গ্রুপফি’ তুলছে তারা। তাদের প্রত্যেকের মুকেই হাসি। এই হাসি মোটেই সেই হাসি নয়, যা আমরা দিবারাত্র ‘পাউট-প্রজন্মের’ মুখে দেখে তাকি। এতে সারল্যের চেয়ে অনেক বেশি প্রকাশিত হয়েছে যা, তাকে ‘হুঁ হুঁ বাওয়া, সব জানি’ ছাড়া অন্য কিছু বলা যায় না। 

কী জানে এই শিশুরা? এরা কি জেনে গিয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়া নামক এক ফাঁপানো বুদবুদ গ্রাস করে ফেলেছে এই দেশকে? এরা কি জেনে গিয়েছে যে ‘আপনার মুখ আপুনি দেখো’-ই সার সত্য এই সময়ে? পাবলিক বলতেই পারেন, এ তো সাজিয়ে তোলা ছবি। ফোটোগ্রাফারই বাচ্চাদের ওই ভাবে দাঁড় করিয়েছেন। তার পরে তাদের শ্যুট করেছেন। কিন্তু তাতে সব কথা প্রকাশ পায় না। 

প্রকাশ পায় না, এই শিশুদের হাসির রহস্য। লক্ষণীয় এদের মধ্যে একজনের পায়েই চপ্পল ছিল। এক বে-সাইজের জুতো। তারই এক পাটি তুলে মোবাইল বানিয়েছে তারা। আর এক পাটি রয়ে গিয়েছে পায়ে। এই এক পদে চপ্পলই কি উত্তর-বিশ্বায়ন ভারতবর্ষ? নিজেরে নগ্নপদ রেখে আমরা কি সমানে সেলফি তুলে চলেছি? 


সেলফি-র ঘোরে পড়ে নেই কে? ছবি: টুইটার থেকে

আরও গভীর ভাবে দেখা যাক, ছবিতে একটি মাত্র মেয়ে। তার হাসিটি যাকে বলে ‘মুখটেপা’। ভারি প্রতীকী এই ভঙ্গি। যেন পুরুষতন্ত্রের যাবতীয় জারিজুরিই সে জেনে গিয়েছে। জেনে গিয়েছে, ছবি তোলা আর পোস্টানোর কালচারের এক ইঞ্চি নীচেই রয়েছে পুংতন্ত্রের কলকাঠি। 

এক বেয়াড়া সাইজের চপ্পলের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছি আমরা সবাই। এই দরিদ্র, ক্লিষ্ট দেশে মোবাইলের জন্য মানুষ খুন হয়। আত্মহত্যা করে বসে সদ্য-কিশোরী মোবাইল না পেয়ে। সেখানে এই ছবিটির বড় প্রাসঙ্গিক। এতটাই প্রাসঙ্গিক যে, একে অনিবার্য বলেও মনে হয়।

অতুলের টুইটে বিগ বি-র মন্তব্য

বলিউডের শাহেনশা কেন ‘ফোটোশপড’ বললেন এই ছবিকে? কোনও ভাবে কি বিপন্ন বোধ করলেন সম্রাট? সেলফি-সর্বস্ব সভ্যতায়, ‘আই-মি-মাইসেলফ’-এর এই যুগে তাঁর কি মনে হল, সেলফি নয়, কোনও ভাবে ওই চপ্পলেই ফুটে উঠছে ভারত-দর্পণ? আর তাতেই কি টলে গেল সংসার? 

বিগ বি নিমিত্ত মাত্র। এই ছবি আসলে চাঁদের উলটো পিঠের, যেখানে আলো পড়ে না। ফলে, আলোয় থাকা মানুষের পক্ষে একে বরদাস্ত করা সমস্যাজনক। 

অনির্বাণ মুখোপাধ্যায়: ভালবাসেন কবিতা আর ভূতের গল্প। গান শোনা আর বই পড়াতেই মোক্ষ।
 

আমাদের অন্যান্য প্রকাশনাগুলি -