বহুমুখী কেরিয়ার। অনেকেই রাজনীতিকে ‘কেরিয়ার’ হিসেবে বেছে নেন।  কারণ আলাদা করে বলার প্রয়োজন নেই। রাখি সাওয়ান্তও রাজনীতি করেছেন। তাঁর দলের নাম ‘‘রাষ্ট্রীয় আম পার্টি’’। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনেও দাঁড়িয়েছেন। এর বাইরে আইটেম নাম্বার, ছোট রোল, গান, রিয়ালিটি শো-এর হোস্ট এবং প্রতিযোগী হিসেবে অংশ নেওয়ার মতো বলিউডে সম্ভাব্য প্রায় সব কাজই করেছেন। হিংসে করার মতো বৈ কী!

সব বিষয়ে মন্তব্য। বলিউডে মজা করে বলা হয়, এই সূর্যের নীচে সম্ভাব্য প্রতিটি বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেন রাখি সাওয়ান্ত। এই ক’দিন আগেই ইন্দ্রাণী মুখোপাধ্যায় নিয়েও রাখি তাঁর নিজস্ব মতামত দিয়েছেন। ঘটনা হল, এই সব মতামত রাখি কিন্তু বেশ প্রত্যয়ের সঙ্গে দেন। বিতর্কও আসে দেদার। যুক্তি? কে দেখতে যাচ্ছে!

খবরে থাকার কায়দা। চুম্বন-বিতর্ক বা টিভি-তে স্বয়ম্বর। রাখি সাওয়ান্ত কিন্তু জানেন কীভাবে খবরে থাকতে হয়। অন্তত মানুষ তাঁকে ভুলে যাবে, এমনটা তিনি কখনওই হতে দেন না।

পোশাক পরিকল্পনা। সাধারণ মানুষ যে পোশাক কিনতে স্রেফ ভয় পাবে, রাখি সাওয়ান্ত অনায়াসে সেই সব পরে চলে আসেন সর্বসমক্ষে। পোশাক ক্যারি করার এই ক্যারিশমা তাঁর তো আর কার আছে? পহলে দর্শনধারী, বাদ মে...

ব্যতিক্রমী ‘তারকা’। রাখি সাওয়ান্তের কোনও হিট ছবির নাম মনে আছে? বলতে গেলে আটকে যাবেন নিশ্চিতভাবেই। কিন্তু রাখি সাওয়ান্তের নাম বললে একডাকে চিনে যাবেন। ব্যস। এতদ্বারা প্রমাণিত হইল যে, তারকা হইতে গেলে সর্বদা সফল নায়িকা হইতে হয় না। অপছন্দ করতেই পারেন। কিন্তু সেলেব তকমা তাঁর থেকে কাড়ে, সে সাধ্য কার?