রবিবারের দুপুর হোক বা গরমের ছুটি, মোবাইল ফোনের যুগ আসার আগে ছোট, বড় সবার জন্য লুডো ছিল সময় কাটানোর এক দারুণ উপায়। স্মার্টফোনের যুগ আসার পরে লুডোও এখন মোবাইলে বন্দি। তবে এখনও কেউ কেউ বাঁচিয়ে রেখেছেন লুডো খেলা। 

লুডো খেলার উৎপত্তিও ভারতে। তাই লুডো খেলেননি, এমন ভারতীয় খুঁজে পাওয়া মুশকিল। কিন্তু এবারে এক অভিনব পদ্ধতিতে লুডো খেলার ভিডিও ভাইরাল হল। 

লুডোয় সাধারণত চারটি রংয়ের ঘুঁটি হয়— লাল, নীল, হলুদ ও সবুজ। কিন্তু এই ভিডিওতে মরুভূমির বালির মধ্যে কাটা হয়েছে লুডোর খোপ। অবিকল লুডোর বোর্ডের মতো দেখতে। তবে এখানে কোনও লাল, নীল, হলুদ, সবুজ ঘুঁটি নেই। এখানে খেলোয়াড়রা নিজেরাই এক একটা ঘুঁটি। 

দেখা যাচ্ছে বালিতে কাটা লুডোর বোর্ডের কেন্দ্রে এক ব্যক্তি বসে রয়েছেন। অর্থাৎ এই মানব-ঘুঁটিকে অন্য কোনও মানব-ঘুঁটি খেতে পারেনি আর সে তার অন্তিম গন্তব্যস্থলে পৌঁছে গিয়েছে। আর বাকিরা লুডোর ছক্কা যেমন ভাবে ঘুরছে, তেমন ভাবেই এগিয়ে যাচ্ছেন। এই মানব-লুডো খেলার ভিডিও পোস্ট করেছে পাকিস্তানের ইউটিউব চ্যানেল ‘লোকাল পাকিস্তান’। সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে এই অভিনব লুডোর ভিডিও। 

উল্লেখ্য, ফতেপুর সিক্রিতে আকবরের প্রাসাদে খেলা হত মানব দাবা। প্রাসাদের বড় অংশ জুড়ে ছিল দাবার ছক। নবাবদের পরিচালনাতেই ঘুঁটি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় সরত, কিন্তু ঘুঁটি হিসেবে ব্যবহার করা হতো মানুষদের।