এবিপি নিউজ-সিএসডিএস-লোকনীতির সমীক্ষা বলছে, মোদী সরকারের জনপ্রিয়তা গত বছর মে মাসে করা সমীক্ষার তুলনায় কমছে। এমনকী পশ্চিমবঙ্গের অধিকাংশ মানুষ মোদী নয়, মমতাকেই প্রধানমন্ত্রীর আসনে দেখতে চাইছেন। 

২০১৭-র মে মাসের সমীক্ষায় দেশের ৪৪ শতাংশ মানুষ জানান, প্রধানমন্ত্রী পদে প্রথম পছন্দ নরেন্দ্র মোদী। এবারের সমীক্ষায় ৩৬ শতাংশ মানুষ চেয়েছেন মোদীকে।

অন্য দিকে, এই ৮ মাসে রাহুল গাঁধীর জনপ্রিয়তা অনেকটাই বেড়েছে। ৯ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশে পৌঁছেছে রাহুলকে পছন্দ করা মানুষের সংখ্যা।

তবে রাহুলের জনপ্রিয়তা বাড়লেও, তা কংগ্রেসকে কেন্দ্রের ক্ষমতায় ফেরাতে পারবে না। সমীক্ষার ফল বলছে এখন ভোট হলে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ পেতে পারে ২৯৩ থেকে ৩০৯টি আসন। ২০১৪ সালের ভোটে এনডিএ পায় ৩৩৬টি আসন। বিজেপি একাই পেয়েছিল ২৮২টি আসন। নতুন সমীক্ষা বলছে, একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নাও মিলতে পারে বিজেপির।

তবে কংগ্রেসও ক্ষমতায় আসতে পারবে না বলে জানাচ্ছে সমীক্ষা। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ পেতে পারে ১২২ থেকে ১৩২টি আসন যা লোকসভার ম্যাজিক ফিগারের থেকে অনেকটাই কম। তবে গত লোকসভা নির্বাচনে ৬০ আসন পাওয়া ইউপিএ অনেকটাই উন্নতি করতে পারে। সমীক্ষা বলছে, রাহুল গাঁধীর নেতৃত্বে কংগ্রেস ৪৪ থেকে ১০০-র কোটা পার করাতে পারবে।

কী হবে বাংলায়?

সমীক্ষা বলছে, এখনই লোকসভা নির্বাচন হলে পশ্চিমবঙ্গে ৪২ শতাংশ ভোট পেতে পারে তৃণমূল। গত মে মাসে ছিল ৩৭ শতাংশ। ৮ মাসে ৫ শতাংশ বেড়েছে। অন্য দিকে, এখন ভোট হলে ২৩ শতাংশ মানুষের সমর্থন পেতে পারে বিজেপি। আগে ছিল ২৯ শতাংশ। আট মাসে বিজেপির জনপ্রিয়তা কমেছে ৬ শতাংশ।

একই অবস্থা বাম ও কংগ্রেসের। এখন ভোট হলে ২০ শতাংশ ভোট পেতে পারে বামেরা আর কংগ্রেস ৪ শতাংশ।