এই মুহূর্তে বাংলা টেলিভিশনের নায়িকাদের মধ্যে অভিনয়গুণে যিনি অনেকের থেকেই এগিয়ে রয়েছেন তিনি হলেন প্রিয়ম চক্রবর্তী। মাস কয়েক আগে শেষ হয়েছে স্টার জলসা-র ‘মেমবউ’। তাঁর হাত দিয়েই ধারাবাহিকের গল্পের মো‌ড় ঘুরেছিল। ধারাবাহিকটি শেষ হওয়ার পরে এখনও‌ পর্যন্ত নতুন কোনও টেলি-ধারাবাহিকে আর দেখা যায়নি তাঁকে। বেশ অনেকদিন ধরেই দর্শকদের কৌতূহল, ঠিক কী করছেন এখন প্রিয়ম? টেলিপর্দায় কি আর ফিরবেন না তিনি? এবার কি ছবির কাছে মন দেবেন? 

এর আগে এবেলা.ইন-এ প্রকাশিত একটি ইন্টারভিউতে প্রিয়ম জানিয়েছিলেন যে তিনি ভীষণভাবে চান চ্যালেঞ্জিং এবং ব্যতিক্রমী চরিত্রে অভিনয় করতে। এবার তেমনই একটি চরিত্রে দেখা যাবে তাঁকে, আড্ডাটাইমস-এর নতুন ওয়েব সিরিজ ‘ওয়ান নাইট স্ট্যান্ড’-এ। নামটা বহু দর্শকের কাছেই একটু বিতর্কিত ঠেকতে পারে। কিন্তু এই ওয়েব সিরিজের বিষয়বস্তু অতটাও লিনিয়র নয় এবং সিরিজের গল্পটি যে একটু ভিন্নধর্মী, সেই ইঙ্গিত দিলেন স্বয়ং পরিচালক। 

ছবি সৌজন্য: অম্বরীশ বন্দ্যোপাধ্যায়

সিরিজটি পরিচালনা করছেন অম্বরীশ বন্দ্যোপাধ্যায়। মুম্বইয়ের এই তরুণ পরিচালক নিজেও অভিনয় করেছেন এই সিরিজে। গত দু’আড়াই মাস ধরে ওয়র্কশপ করেছেন প্রিয়ম ও সিরিজের অপর অভিনেতা সৌরভ দাসের সঙ্গে। ‘‘এরকম ওয়র্কশপ আমি আগে করিনি। অম্বরীশদা এমনভাবেই আমাদের ওয়র্কশপ করিয়েছেন যে পুরো টিমটার মধ্যে অসাধারণ একটা বন্ডিং তৈরি হয়েছে। একটু বোল্ড যে সিকোয়েন্স রয়েছে সেগুলো করতে অসুবিধা বা অস্বস্তি হয়নি ওই ওয়র্কশপের জন্যেই। আর শুধু অভিনয় নয়, আমার মেকওভার যাতে ঠিকঠাক হয় তার জন্য নিজে শপিংয়ে গিয়েছেন, প্রত্যেকটা ডিটেলে নজর দিয়েছেন। আমার দারুণ লেগেছে ওঁর সঙ্গে কাজ করে। এবং অবশ্যই এরকম একটা চরিত্র করতে পেরে।’’

ছবি সৌজন্য: অম্বরীশ বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্প্রতি আড্ডাটাইমস-এর ওয়েবসাইটে মুক্তি পেয়েছে এই নতুন সিরিজের টিজার। কিছুদিনের মধ্যেই মুক্তি পাবে প্রোমো। আর সিরিজটি শুরু হবে পুজোর ঠিক পর পর। পরিচালক সংক্ষেপে জানালেন তাঁর ওয়েব সিরিজের থিম— ‘‘অনেক সময়েই তো এরকম হয় যে দূরপাল্লার ট্রেনে বা কোনও একটা জার্নিতে এমন কারও সঙ্গে আলাপ হল, যার সঙ্গে হয়তো আর কোনওদিনই দেখা হবে না। কিন্তু ওইটুকু সময়ের মধ্যে হয়তো তার সঙ্গে এমন একটা বন্ডিং তৈরি হয়, এমন কিছু শেয়ার করি আমরা, যে অভিজ্ঞতার রেশ সারা জীবন মনে থেকে যায়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সেই যে সম্পর্কগুলো তৈরি হয় এসব ক্ষেত্রে তার কোনও সংজ্ঞা হয় না। এই গল্পটা তেমনই একটা গল্প এবং প্রিয়ম যে চরিত্রটি করছে তার কিন্তু কোনও ব্যাকগ্রাউন্ড নেই। সে কোথায় থাকে, তার পেশা কী, তার ব্যাকগ্রাউন্ড কী কোনও কিছুই জানা নেই। ঠিক যেমনটা আমরা জানতে পারি না, ট্রেনের কামরায় উলটোদিকে বসা সেই মানুষটির সম্পর্কে যে হয়তো পরের স্টেশনে নেমে যাবে। শুধু ওই মুহূর্তটুকুতে সে যেমন, সে ঠিক তেমনই। তার অতীত বা ভবিষ্যত বলে কিছু নেই— এই সময়েই যখন তার দেখা হয় একজন স্ট্রেঞ্জারের সঙ্গে, তার পরে কী ঘটে বা কী ঘটতে পারে, সেটাই এই সিরিজের বিষয়বস্তু।’’     

ছবি সৌজন্য: অম্বরীশ বন্দ্যোপাধ্যায়

ঠিক কী ঘটে, সেটা জানতে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে কিন্তু টিজার থেকে একটা জিনিস স্পষ্ট, বাংলা টেলিভিশনের ‘টিপিক্যাল’ ইমেজ ভেঙে বেরিয়ে এসেছেন প্রিয়ম এই ওয়েব সিরিজে।