বিশ্বকাপে ফ্রান্সের কাছে হেরে আর্জেন্টিনা ছিটকে যাওয়ার পরেই মেসির জাতীয় দলে আয়ু নিয়ে একগুচ্ছ প্রশ্ন উঠে গিয়েছিল। অনেকেই ধরে নিয়েছিলেন, কোপার ব্যর্থতা সহ্য না করতে পেরে যেভাবে অবসর নিয়ে ফেলেছিলেন। তেমনভাবেই ফের হয়তো অবসরের রাস্তায় হাঁটবেন মেসি।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

তবে আপাতত ব্যর্থতার পরে মুখে কুলুপ এঁটেছেন মহাতারকা। তবে মেসির ভবিষ্যৎ নিয়ে মুখ খুলে আর্জেন্টিনীয় ফুটবল সংস্থার প্রধান ক্লদিও তাপিয়া জানিয়ে দিয়েছেন, মেসির অবশ্যই জাতীয় দলের জার্সিতে খেলা চালিয়ে যাওয়া উচিত। ‘‘বিশ্বকাপ থেকে যে বিশ্রীভাবে আমরা বিদায় নিয়েছি, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। দেশের ব্যর্থতায় মনে মনে প্রচণ্ড আঘাত পেয়েছে লিও। তবে আর্জেন্টিনার ওঁকে সবসময়েই দরকার।’’ এখানেই না থেমে এএফএ সভাপতি আরও জানান, ‘‘ওঁকে দরকার আমাদের অর্থনৈতিক দুরবস্থার জন্য। আশা করি মেসি দীর্ঘদিন আর্জেন্টিনার জার্সিতে খেলবে। জাতীয় দলকে ও খুবই ভালবাসে। ওকে নিয়ে আমাদের প্রত্যাশাও বেশি। আসলে, ও সবসময়ে আমাদের ভরসা জোগায়।’’

মেসির ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নিয়ে মুখ খুলেছেন তাপিয়া। গত সপ্তাহেই মেসির সঙ্গে শেষবার কথা হয়েছে তাপিয়ার। তিনি জানান, ‘‘মেসি আপাতত পরিবারের সঙ্গে ছুটিতে রয়েছে। এই মুহূর্তে ওঁকে একা থাকতে দেওয়াটা ভীষণ প্রয়োজন। স্পেনে খেলা শুরু করার পরে দেখা যাবে ও কী করে!’’

সাম্পাওলি বিদায়ের পরে পরবর্তী কোচ কে হবে, তা নিয়েও জল্পনা চলছে। শোনা গিয়েছিল পেপ গুয়ার্দিওলাকে কোচ হিসেবে চাইছে আর্জেন্টিনীয় ফুটবল সংস্থা। তবে ম্যান সিটির সঙ্গে ২০২১ সাল পর্যন্ত চুক্তি থাকা গুয়ার্দিওলাকে ট্রান্সফার ফি আনতে উৎসাহী নয় তাঁরা। বিকল্প কোচ হিসেবে উঠে আসছে আলেসান্দ্রো সাবেয়া, হোসে পেকেরম্যানের নাম। পেরুর দায়িত্বে থাকা রিকার্ডো গ্যারেকাও দৌঁড়ে রয়েছেন। তাপিয়া জানিয়ে দেন, ‘‘৩১ জুলাই থেকে কার্যনির্বাহী কমিটির সঙ্গে আলোচনা শুরু করব। সেখানেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’’