গ্রামবাসীরা ভয়েই কাহিল। ভেড়া জন্ম দিয়েছে এমন এক শাবকের, যার শরীরে স্পষ্ট আদল মানুষের!  

এমনই এক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে একটি আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে। জানা যাচ্ছে, দক্ষিণ আফ্রিকার পূর্বাঞ্চলে লেডি ফ্রেয়ার গ্রামে এই মেষশাবকটিকে দেখে রীতিমতো ভীত হয়ে পড়ে গ্রামের সবাই। 
তারা ধরে নেয় এক ‘অশুভ শক্তি’ জন্ম নিয়েছে পশুর চেহারায়। যদিও শাবকটি মৃত অবস্থাতেই প্রসব হয়েছিল, তবুও আতঙ্ক ক্রমে বাড়তে থাকে। আধা-মানুষ আধা-পশু সেই প্রাণীটিকে দেখতে ভিড় জমতে থাকে। 

হয়তো এই বিশ্বাসের মূলে কাজ করছিল বাইবেলের ‘নিউ টেস্টামেন্ট’-এর ‘সেভেন্থ সিল’-এর প্রসঙ্গ। ‘ভেড়া’রূপী যিশু খ্রিস্টের বিপরীতে শয়তান প্রেরিত দূতের কথাও জানা যায়। তার কল্পনা করতে গিয়েই বিকৃত চেহারার ভেড়ার কথা হয়তো সকলেরই মনের মধ্যে চলে এসেছিল। 

আতঙ্ক ক্রমে ছড়াতে থাকে। ধীরে ধীরে তা এমন চেহারা নেয়, তা আরও দূর-দূরান্ত পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। আগুনের মতো তা ছড়িয়ে পড়তে থাকে গ্রামীণ জনজাতির মধ্যে। শেষ পর্যন্ত ব্যাপারটা দেখতে গ্রামীণ উন্নয়ন দফতর তাদের প্রতিনিধিকে পাঠায়।   

ভিডিও দেখুন। সৌজন্য: নাউইউনো-এর ইউটিউব চ্যানেল। 

 

শেষ পর্যন্ত পশু বিভাগের আধিকারিকরা মৃত শাবকটিকে দেখে সিদ্ধান্তে আসেন, দেখে যতই মানুষের সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া যাক, এটা আসলে বিকৃত ভেড়া শাবক। শাবকটির জন্মদাত্রী ভেড়াটি গর্ভবতী অবস্থাতে ভাইরাস সংক্রমণে অসুস্থ হয়ে পড়ে। সেই সংক্রমণে তার গর্ভস্থ শাবকটি স্বাভাবিকভাবে বেড়ে উঠতে পারেনি। ফলে তার চেহারায় ওরকম বিকৃত আদল চলে আসে। 

আপাতত শাবকটির দেহ ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ঠিক করা হয়েছে, রিপোর্ট পেলে প্রত্যন্ত গ্রামের কুসংস্করাচ্ছন্ন মানুষকে বিস্তারিত বোঝানো হবে। কিন্তু গ্রামবাসীরা আপাতত অপেক্ষায়, কবে এই ‘অশুভ’ শাবকটিকে দাহ করা হবে।