শিক্ষক দিবসে নিজের মাস্টারমশাই-দিদিমনিদের উদ্দেশে শ্রদ্ধা জানানোই রীতি। নিজের জীবনে তাঁদের অবদানকে সম্মান জানানোর প্রথাই চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরেই।

এমন দিনে উল্টো সুর কেন অলিম্পিকের রুপো-জয়ী ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় পিভি সিন্ধুর গলায়? বিশ্ব ব্যাডমিন্টন সার্কিটে তাঁর উত্থানের পিছনে তাঁর কোচ পুল্লেলা গোপীচন্দের অবদান তো কম নয়!

তবু সেই শিক্ষককে নিয়েই সিন্ধুর বার্তা ‘‘আই হেট মাই টিচার, গোপীচন্দ।’’ সিন্ধুর মুখে শিক্ষক দিবসে এমন অবাক করা কথা শুনে ঘাবড়ে যাওয়া স্বাভাবিক।

কী এমন করলেন গোপীচন্দ যে, গোপীকে নিয়ে এমন মন্তব্য করতে গেলেন তাঁর অন্যতম প্রিয় ছাত্রী সিন্ধু।

এই বার্তার আসল উদ্দেশ্য খোলসা করেছেন সিন্ধু নিজেই। একটি পানীয় সংস্থার বিজ্ঞাপনের ভিডিওতে তিনি বিস্তারিত জানিয়েছেন, তিনি কেন ‘ঘৃণা’ করেন গোপীকে।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

সিন্ধু বলছেন, ‘‘আমি আমার শিক্ষককে ঘৃণা করি। কারণ আমার পায়ের ক্ষতর জন্য তিনিই দায়ী। উনি আমার উপর চেঁচান।’’

এর পরে তিনি বলেন, ‘‘আমি ঘেমে গেলে বা যখন আমি পড়ে যাই, আমি নিঃশ্বাস নিতে না পারি, তখন আমার শিক্ষক খুশি হন। আমার ব্যথার জন্য তিনিই দায়ী। আমি না ঘুমলে ওঁর কিছু যায় আসে না।’’

পিভি সিন্ধু। ছবি: গেটি ইমেজেস

শেষে সিন্ধু বলেন, ‘‘উনি কখনও ছেড়ে দেন না আমাকে। আমি সবচেয়ে বেশি ওঁকে ঘৃণা করি, কারণ উনি আমার উপর এতটাই বিশ্বাস রাখেন যে, আমি নিজেও নিজেকে অতটা ভরসা করতে পারি না।’’

পুরো ভিডিওটি জুড়েই দেখানো হয়েছে গোপীচন্দ কী ভাবে সিন্ধুকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন ও কড়া শাসনে রাখছেন। সিন্ধুর উত্থানের পিছনে যে গোপীর এই কড়া অনুশাসন কাজ করেছে, তাই এভাবে স্মরণ করেছেন এই ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়। 

তাই ভিডিওটির একদম শেষে সিন্ধু বলছেন, ‘‘আমার শিক্ষককে ধন্যবাদ।’’
যে শিক্ষকরা ‘সোনার জন্য ঘামিয়েছেন’ তাঁদের ছাত্রছাত্রীদের, সেই সব শিক্ষকদের শ্রদ্ধা জানাতেই এমন অভিনব ভিডিও।