মহম্মদ সামিকে ঘিরে বিতর্ক শেষ হয়নি এখনও। এর মধ্যেই আরও এক ক্রিকেটার স্ত্রীর মারাত্মক অভিযোগের মুখে পড়ে শিরোনামে।

বাংলাদেশের জাতীয় দলের নামজাদা ক্রিকেটার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত-এর স্ত্রী সারমিন সমিরা ঊষা। সম্প্রতি তিনি মুখ খুলেছেন স্বামীর অত্যাচারের বিরুদ্ধে। তাঁর দাবি, বিবাহের পর থেকেই পণের জন্যে লাগাতার জুলুম চালিয়ে যাচ্ছেন সৈকত। এখানেই শেষ নয়, অভিযোগ, পণের টাকা না পাওয়ায়, সৈকত শেষমেশ বাড়ি থেকে বের করেও দিয়েছেন তাঁকে।
 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

বাংলাদেশের গণমাধ্যম বিডিনিউজ.২৪-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী বহুদিন মুখ বুজে সহ্য করার পর আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন সমিরা।

বছর ছয়েক আগে সৈকত তাঁর তুতো বোন সমিরাকে বিয়ে করেন। অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই পণের জন্য চাপ দেওয়া হয় সমিরাকে। পণের অঙ্কের পরিমাণ ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় সাড়ে আট লক্ষ টাকা। দাবি পূরণ না হওয়ায় গত ১৫ অগস্ট কার্যত ঘাড়ধাক্কা দেওয়া হয় তাঁকে।

এর পরেই ঘুরে দাঁড়ান সমিরা। সিদ্ধান্ত নেন আইনের রাস্তায় হাঁটার। সম্প্রতি অতিরিক্ত মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট রশিনা খান সৈকতের উপজেলার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিকদের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, সেপ্টেম্বরেই সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে এশিয়া কাপ। প্রথম একাদশে সুযোগ পেয়েছেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। এর মধ্যেই এই কাজিয়ায় অস্বস্তিতে সৈকত। 

আদালতের প্রথম শুনানিতে যাননি সৈকত। এখন দেখার, আগামী দিনে এই তারকা ক্রিকেটার কী করেন।