আইসিসি-র সূচি অনুযায়ী ম্যাচটা হওয়ার কথা আগামী শনিবার। তবে পাকিস্তান বনাম বাংলা সেই প্রস্তুতি ম্যাচ শেষ পর্যন্ত হবে কি না, তা নিয়েই ধোঁয়াশায় সিএবি কর্তারা। আজ, সোমবার পাকিস্তানের তিন সদস্যের প্রতিনিধি দলের ভারতে আসার কথা। নিরাপত্তা নিয়ে তারা সবুজ সংকেত দিলে তবেই পাকিস্তান ক্রিকেটারেরা রওনা হবেন। এমনিতে শাহিদ আফ্রিদিদের আসার কথা ছিল বুধবার। তবে তাঁদের ভারতে আসা পিছিয়ে গেলে বাংলার বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচটা খেলবেন কি না, তা নিয়ে ভালরকম ধোঁয়াশা রয়েছে।
ম্যাচ নিয়ে টানাপড়েন থাকলেও রবিবার সন্ধ্যায় ইডেন গার্ডেন্সে প্রস্তুতিতে নেমে পড়লেন বাংলার ক্রিকেটারেরা। এবং প্রথমদিনের প্র্যাক্টিসেই অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি সতীর্থদের বার্তা দিলেন, পাকিস্তানকে হারিয়ে নিজেদের প্রমাণ করার এত বড় সুযোগ হাতছাড়া করা চলবে না। প্র্যাক্টিসের শেষে মনোজ বললেন, ‘‘পাকিস্তান আন্তর্জাতিক দল। স্থানীয় দল হিসাবে ওদের মোকাবিলা করাটা কঠিন চ্যালেঞ্জ। তবে আমরা মাঠে নামব ম্যাচটা জেতার লক্ষ্য নিয়েই। ক্রিকেটারদেরও সেটা বলে দিয়েছি।’’ তবে ম্যাচ হওয়া নিয়ে তিনিও দুশ্চিন্তায়। মনোজ বললেন, ‘‘ম্যাচটা না-ও হতে পারে বলে শুনছি। তবে আমরা প্রস্তুতিতে কোনও ফাঁক রাখতে চাই না।’’
ঋদ্ধিমান সাহা ও অশোক ডিন্ডা কলকাতার বাইরে থাকায় প্র্যাক্টিসের প্রথমদিন ছিলেন না। ইরানি ট্রফির ম্যাচ খেলছেন বলে নেই সুদীপ চট্টোপাধ্যায়ও। তবে রবিবার ইডেনে আচমকাই হাজির হয়ে গিয়েছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল। মনোজদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ প্র্যাক্টিসও করেন আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সে খেলা রাসেল। বাংলার কোচ সাইরাজ বাহুতুলের তত্ত্বাবধানে ব্যাটিং ও বোলিং করেন। পরে মনোজ বললেন, ‘‘টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলবে বলে আন্দ্রে কলাকাতয় পৌঁছে গিয়েছে। ইডেনে বাংলার প্র্যাক্টিস আছে শুনেই গা ঘামিয়ে নেওয়ার জন্য চলে এসেছিল। আন্দ্রে থাকায় আমাদের প্রস্তুতিও বেশ ভাল হল।’’