‘মা দুর্গা’ বাঙালির সবচেয়ে বড় সহায়। বাঙালির সবচেয়ে বড় সেন্টিমেন্ট। কিন্তু প্রতি বছর শারদোৎসবের জন্য অপেক্ষা করে থাকেন যে বাঙালি, মায়ের আগমনী শুনে শিহরিত হন যাঁরা অথবা বিসর্জনের রাতে চোখ ছলছল করে ওঠে যাঁদের, সেই বাঙালি মনে-প্রাণে সত্যিই কি সম্পৃক্ত এই দেবী দুর্গার দর্শনে। আরতির প্রদীপের নীচে ঠিক কতটা অন্ধকার জমে থাকে? 

এমন অনেক প্রশ্ন তুলবে পরিচালক অরিন্দম শীলের নতুন ছবি ‘দুর্গা সহায়’। অভিষেক ঘোষ প্রযোজিত এই ছবির প্রধান চরিত্রে রয়েছেন সোহিনী সরকার, তনুশ্রী চক্রবর্তী, সুমন্ত মুখোপাধ্যায়, ইন্দ্রাশিস লাহিড়ি, কৌশিক সেন, সম্পূর্ণা লাহিড়ি, দেবযানী চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ। এক বনেদি যৌথ-পরিবারের প্রেক্ষাপটে ছবির গল্প এবং পুরো গল্পটাই দেবীপক্ষের দশ দিনের— আগমনী থেকে বিসর্জন পর্যন্ত। 

আরও পড়ুন

মুক্তি পেল অরিন্দম শীলের ‘দুর্গা সহায়’-এর ট্রেলার, দেখুন ভিডিও

মিমিকে চিঠি লিখলেন অরিন্দম শীল, কী চিঠি দেখে নিন

তার মধ্যেই ঘনিয়ে ওঠে সমস্যা, প্রকট হয়ে ওঠে পারিবারিক কূটকচালি-নিষ্ঠুরতা। আবার বিত্তবিভাজিত সমাজকাঠামোর প্রসঙ্গও এসেছে এই ছবিতে। সব মিলিয়ে একটি বাস্তব উপাখ্যান যেখানে প্রতি পদে পদে সহায় হন ‘দুর্গা’— কে তিনি? মৃন্ময়ী মা না কোনও মানবী? এই কৌতূহল বাড়িয়ে দেয় ছবির কলাকুশলীদের সঙ্গে কথোপকথন।  

আমি বসাক বাড়ির একমাত্র মেয়ে, যে খুব একটা হার্মফুল নয় কিন্তু মাঝেমধ্যে খুব পিএনপিসি করে আর তাকে প্যাম্পার করে বড় বউদি: সম্পূর্ণা

চরিত্রের জন্য ইচ্ছে করেই আমি ডায়েটিং ছেড়েছি, প্রচুর খেয়েছি পুট অন করার জন্য, কিন্তু আরও মোটা হয়েছি শ্যুটিংয়ে খেয়ে: দেবযানী 

সম্প্রতি হোটেল ওরিয়নে বসেছিল টিম ‘দুর্গা সহায়’-এর বিশেষ আড্ডা সেশন। চরিত্র পরিচিতি, ছবির বিষয় সম্পর্কে ব্যক্তিগত মতামত-দৃষ্টিভঙ্গি ও শ্যুটিংয়ের নানা অ্যানেকডটস নিয়ে জমে উঠল আড্ডা। আজ প্রকাশিত হল আড্ডার প্রথম পর্ব, যেখানে শ্যুটিংয়ের নানা মজার অভিজ্ঞতা এবেলা ওয়েবসাইটকে জানালেন সম্পূর্ণা লাহিড়ি ও দেবযানী চট্টোপাধ্যায়। আড্ডা শুনতে ক্লিক করুন নীচের ভিডিও লিঙ্কে—