বীরভূমের সিউড়ির কাঁকরতলা থানা এলাকায় বিস্ফোরণে উড়ে গেল তৃণমূলের দলীয় পার্টি অফিস। এদিন সকাল দশটা নাগাদ বিস্ফোরণের জেরে কংক্রিটের তৈরি পার্টি অফিসের তিন দিকের দেওয়াল ভেঙে পড়ে। বিকট শব্দে কেঁপে ওঠে এলাকা।  যদিও ঘটনার সময়ে পার্টি অফিসটি বন্ধ থাকায় কেউ হতাহত হননি।

ওই পার্টি অফিসটি তৈরি করেছিলেন নিহত তৃণমূল নেতা বুড়ো কাদেরি। ২০১২ সালে ২৮ মে দলীয় কোন্দলের জেরে ওই তৃণমূল নেতা খুন হন বলে অভিযোগ। ওই গ্রামে পঞ্চায়েত প্রধান নির্বাচন ঘিরে এখনও তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব তুঙ্গে। বর্তমানে ওই পার্টি অফিসে বসেন প্রয়াত বুড়ো কাদেরির ভাই উজ্জ্বল কাদেরি। ওই এলাকাটি বড়া গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার মধ্যে পড়ে। পঞ্চায়েতে প্রধান নির্বাচন নিয়ে উজ্জ্বল কাদেরির সঙ্গে শেখ আজফর ওরফে কালো নামে এক তৃণমূল নেতার সংঘাত চলছিল। কয়েক দিন আগে ওই এলাকায় বোমাবাজিও হয়। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

দলের নির্দেশে শেখ আজফরের পছন্দের প্রার্থীকেই প্রধান মনোনীত করা হয়। আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর ওই পঞ্চায়েতে প্রধান নির্বাচন ছিল। তার আগেই এই বোমা বিস্ফোরণ। তৃণমূল নেতা উজ্জ্বল কাদেরি বিস্ফোরণের জন্য প্রথমে কালোর দিকেই আঙুল তোলেন। পরে অবশ্য বয়ান বদলে তিনি বলেন, বিজেপি ওই পার্টি অফিসে বোমা রেখেছে। 

দেখুন ভিডিও

 

কালো অবশ্য স্পষ্ট অভিযোগ করেছেন, প্রধান নির্বাচনের দিন এলাকায় গণ্ডগোল ছড়াতেই উজ্জ্বল কাদেরি ওই পার্টি অফিসে বোমা মজুত করে রেখেছিলেন। কয়েক দিন আগে পশ্চিম মেদিনীপুরের নারায়ণগড়েও বিস্ফোরণে উড়ে গিয়েছিল তৃণমূলের পার্টি অফিস।