এক দশকের বেশি ভারতের ফুটবলে দাপিয়ে রাজত্ব করেছেন তিনি। কলকাতায় দুই প্রধানের জার্সিতে ছয় বছর খেলেছেন। নাইজেরীয় গোলমেশিন এডে চিডি আপাতত তৈরি হচ্ছেন আইএসএল-এ নামার জন্য। স্বদেশীয় র‌্যান্টি মার্টিন্স, ডুডু ওমাগবেমি যখন আইএসএল কাঁপাচ্ছেন, তখন তিনি সুদূর মালয়েশিয়ায় বসে নজর রেখেছেন। মালয়েশিয়ান ক্লাব কেডা এফএ-র সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ থাকার কারণে আইএসএল-এর ড্রাফটিংয়ে নিজের নাম রাখতে পারেননি। তবে এবার আইএসএল-এ দল পাওয়ার জন্য উদগ্রীব তিনি।

আইলিগ, আইএসএল নিয়ে আপাতত ভারতীয় ফুটবলে জটিলতা তুঙ্গে। কুয়ালালামপুরে ফেডারেশন এবং ক্লাবগুলির প্রতিনিধি দল এএফসি-র সঙ্গে মহা গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসছে ৭ তারিখে। সেই বৈঠকেই ঠিক হয়ে যেতে পারে ভারতীয় ফুটবলের আগামী দিনের রূপরেখা।

সাময়িক এই জটিলতা কেটে গেলে ভারতীয় ফুটবলে প্রত্যাবর্তনের অপেক্ষায় রয়েছেন আট বছর আগে ডার্বি জয়ের নায়ক। এবেলা.ইন-এর পক্ষ থেকে চিডির সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলে দেন, ‘‘ফের ভারতীয় ফুটবলে ফিরতে চাই।’’ তবে ফেরার মঞ্চ হিসেবে তিনি আইলিগ নয়,  বেছে নিতে চান আইএসএল-কেই। চিডি বলছিলেন, ‘‘আইএসএল-এ বিশ্বের নামি দামি তারকারা খেলতে আসে। ওদের পাশে খেললে নিজের কেরিয়ার সার্থক হবে।’’ এরপর তাঁর সংযোজন, ‘‘আইএসএল-এ র‌্যান্টি, ডুডু’দের খেলা দেখেছি। ওরাও আইএসএল-এ বিদেশিদের পাশে সফল। আমিও ওদের পথে হেঁটে নিজের জাত চেনাতে চাই।’’

মালয়েশিয়ান লিগে চিডি

আইএসএল-এর জন্যই এখন কঠোর অনুশীলনে মগ্ন চিডি এডে। এতদিন কেন আইএসএল-এ খেলেননি, তা-ও খোলসা করে জানিয়েছেন নাইজেরীয় তারকা। তাঁর বক্তব্য, ‘‘ইস্টবেঙ্গল থেকে চলে যাওয়ার পর মালয়েশিয়ার কেডা এফসির ভাল অফার ছিল। সেখানে থাকার সময়ে আইএসএল নিয়ে খুঁটিনাটি খবর রাখতাম। চেন্নাইয়ান এফসি’কে প্রথম থেকেই সমর্থন করতাম। ওদের মাতেরাজ্জির মত বিখ্যাত ফুটবলার কাম ম্যানেজার রয়েছেন। দূর থেকে মনে হয়েছে ওঁর ম্যান ম্যানেজমেন্ট স্কিলটা দারুণ।’’

পাশাপাশি আইএসএল-এর গ্ল্যামারেও মুগ্ধ ইস্ট-মোহনে খেলা এই তারকা ফুটবলার। এবেলা.ইন-কে বলছিলেন, ‘ঝকঝকে টিভি কভারেজ, বিশ্বমানের ফুটবল, মাঠভর্তি দর্শক— আইএসএল-এর সবকিছুই নজরকাড়া। এই লিগ অল্প সময়ের মধ্যেই দারুণ জনপ্রিয় হয়েছে। মালয়েশিয়াতে বসেও এই জনপ্রিয়তার আঁচ টের পেয়েছি।’’ এরপর তাঁর সংযোজন, ‘‘এমন লিগে বিখ্যাত ফুটবলারদের পাশে খেলার সুযোগ পেলে নিজেকে গর্বিত মনে করব।’’

আপাতত নাইজেরিয়ার স্থানীয় লিগে এনাগু রেঞ্জার্সের হয়ে খেলছেন চিডি। আইএসএল-এর ড্রাফটিংয়ে কোনও দল কিনে নিলেও পত্রপাঠ ভারতের বিমানে উড়বেন তিনি। আপাতত নাইজেরিয়া থেকে এডে চিডি লক্ষ্য রাখছেন ৭ তারিখের মেগা-বৈঠকের দিকে। ভারতের মাটিতে দু’শোরও বেশি গোল রয়েছে তাঁর। কলকাতার দুই প্রধান-সহ ভারতে খেলেছেন নয়টি পৃথক পৃথক দলের হয়ে। ভারতে থাকাকালীন চিডির নামই হয়ে গিয়েছিল ‘শিকারি’। আইএসএল-এ সুযোগ পেলে ফের ‘গোল শিকার’ করতে পারেন কিনা তিনি, সেটাই আপাতত দেখার।

দেখুন চিডির বিশেষ ভিডিও বার্তা...