সলমনের হাজতবাস দীর্ঘায়িত হল। কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় অভিনেতা সলমন খানের জামিনের আবেদনের শুনানি শুরু হলেও রায় দিল না আদালত। শনিবার রায় দেবে জোধপুর দায়রা আদালত। এর ফলে আরও চব্বিশ ঘণ্টা জেলেই কাটাতে হবে মহাতারকাকে। 

বৃহস্পতিবারই তাঁকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড এবং দশ হাজার টাকা জরিমানা করেছিলেন জোধপুরের প্রধান জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট। সেই রায়ের বিরুদ্ধেই শুক্রবার দায়রা আদালতে জামিনের আবেদন করেছিলেন সলমনের আইনজীবীরা। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

কিন্তু জামিনের বিরোধিতা করেন সরকারি আইনজীবী। এরই পরিপ্রেক্ষিতে এই মামলায় পুরনো রেকর্ড তলব করেন বিচারক। একই সঙ্গে তিনি জানিয়ে দেন, শুনানির রায় দেবেন শনিবার।

শনিবার যদি কোনও কারণে সলমনের জামিন খারিজ করে দায়রা আদালত, সেক্ষেত্রে সোমবারের আগে হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করতে পারবেন না তাঁর আইনজীবীরা। ফলে, ভাইজানের দুশ্চিন্তা আরও বেড়ে গেল। 

এ দিন জামিনের শুনানির শুরুতেই সলমনের আইনজীবীরা দাবি করেন, যে সাক্ষীদের জবানবন্দির উপরে ভিত্তি করে সলমনকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে, তাঁরা নির্ভরযোগ্য নন। শুধু তাই নয়, সলমনের বিরুদ্ধে আগেই অস্ত্র আইনে রুজু করা মামলা খারিজ করেছিল হাইকোর্ট। 

সর্বভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, সলমনের জামিনের জন্য ৫৪টি যুক্তি দিয়ে মোট ৫১ পাতার জামিনের আবেদন আদালতে জমা দিয়েছিলেন তাঁর আইনজীবীরা। এতকিছুর পরেও অবশ্য সলমনকে আজকের দিনটি জেলেই কাটাতে হচ্ছে।