মাঠের খেলা ড্র হল। কিন্তু মাঠের বাইরের খেলায় যে আগুন জ্বলল। যত কাণ্ড সব আইজলে! 

খেলার শেষ বাঁশি বাজতেই আইজল এফসি কোচ পাওলো মেনেজেস ছুটে গিয়েছিলেন ইস্টবেঙ্গল কোচ খালিদ জামিলের সঙ্গে হাত মেলাতে। লাল-হলুদ কোচকে কিছু একটা বলতে দেখা যায়। আইজল কোচ সঙ্গে সঙ্গে স্থানত্যাগ করেন ক্ষুব্ধভাবে। 

এখানেই যদি সব শেষ হয়ে যেত, তাহলে তো মিটেই যেত। ম্যাচের পরে ধুন্ধুমার ঘটে যায়। আইজল থেকে ইস্টবেঙ্গল ফুটবল-সচিব রাজা গুহ এবেলা.ইন-কে বলেন, ‘‘আমরা আইজলে পা রাখার পর থেকেই ওরা আমাদের সঙ্গে কোনওরকম সহযোগিতা করতে রাজি হচ্ছিল না। ম্যানেজার্স মিটিংয়ের জন্য কাল আমাকে গাড়ি পর্যন্ত দেয়নি। আজ খেলা শেষের পরে উগ্র সমর্থক, আইজলের বেশ কয়েকজন আমাদের ড্রেসিং রুমে ঢুকে পড়ার চেষ্টা করে। আমাদের গালিগালাজ করা হয়। ক্ষিপ্ত সমর্থকদের হাত থেকে বাঁচার জন্য স্টেডিয়ামের পিছনের দরজা দিয়ে আমাদের গাড়ি বের করা হয়। এখনও হোটেলেই পৌঁছতে পারিনি।’’ 

উগ্র সমর্থকরা অবশ্য লাল-হলুদ ফুটবলারদের গায়ে হাত তুলতে পারেনি। কিন্তু গোটা ঘটনায় আতঙ্কিত ইস্টবেঙ্গল ফুটবলাররা। রাজা গুহ বলছিলেন, ‘‘ওদের মাঠ আমাদের মতো নয়। এখানকার গ্যালারি আর মাঠ খুব কাছাকাছি। গালিগালাজ তো নাগাড়ে করে যাচ্ছিলই। খেলার শেষে সমস্যা আরও বেড়ে যায়। আইলিগের সিইও সুনন্দ ধর নিজে ছিলেন মাঠে। তিনি সবটাই দেখেছেন। সবাই মিলে আমাদের উদ্ধার করে।’’