ক্ষমতায় এসেই ভারতে বুলেট ট্রেন চালানোর অঙ্গীকার করেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। কেন্দ্রে ক্ষমতার ২ বছর অতিবাহিত হতে চললেও এখনও সেই অঙ্গীকার তিনি পূরণ করতে পারেননি। তার মধ্যে রেলওয়ে জানিয়ে দিয়েছে, ২০২১-এর মধ্যে ভারতে বুলেট ট্রেন চালানো সম্ভব হবে।
তার আগে সেমি বুলেট ট্রেন ভারতীয় রেল ট্র্যাকে ছোটানো যায় কি না তা নিয়েই এখন পরীক্ষা-নিরিক্ষা চলছে। এর জন্য স্পেনের ‘তালগো’ ট্রেনকে ভারতের দু’টি রেল রুটে ট্রায়াল রানে রাখা হয়েছে।

‘তালগো’ ভারতীয় রেলের সংসারে এলে যে সুবিধাগুলি হতে পারে—  
 ১. ‘রাজধানী’ ও ‘শতাব্দী’ এক্সপ্রেসে যে ধরনের এলএইচবি কোচ ব্যবহার করা হয় তার জায়গায় ‘তালগো’ ট্রেনকে নিয়ে আসা হলে ভারতীয় রেল ১ কোটি টাকা করে সাশ্রয় করবে।

ছুটছে তালগো।

২. ‘তালগো’র কোচগুলিকে অতি অল্প খরচেই রক্ষণাবেক্ষণ করা সম্ভব। এর ফলে ভারতীয় রেলের প্রচুর অর্থ সাশ্রয় হবে।

তালগো কোচ।

৩. ‘তালগো’ ট্রেনে এগজিকিউটিভ ক্লাস ছাড়াও চারটি চেয়ার কার, কাফেটারিয়া, একটি পাওয়ার কার এবং একটি টেল এন্ড কোচ রয়েছে। এই টেল এন্ড কোচে রেলের স্টাফদের থাকার ব্যবস্থার সঙ্গে যন্ত্রপাতি রাখার জায়গা রয়েছে।    

তালগো কোচের ভিতর এবং বাইরেটা এরকমই।

  
৪. যাত্রী আসনে যেমন পা-রাখার সুন্দর বন্দোবস্ত আছে তেমনি রয়েছে বই পড়ার জন্য আলোর ব্যবস্থা এবং প্রতিটি আসনের সঙ্গে ভিডিও এবং অডিও সিস্টেম।

 তালগো কোচের ভিতরের ছবি।

৫. বাইরে যতই গরম বা ঠান্ডা পড়ুক, ‘তালগো’-র কোচের ভিতরের তাপমাত্রা বেশ মনোরম থাকে।

দেখুন ফোটোগ্যালারি

পৃথিবীর সবথেকে দ্রুতগামী ১০টি ট্রেন ও তাদের গতি