প্রতিবেশী ক্লাবের মাঠে হোম ম্যাচ খেলার চিন্তাভাবনা চলছে ইস্টবেঙ্গল শিবিরে। সমর্থকরা জানাচ্ছেন তীব্র প্রতিবাদ। এর মধ্যেই মাঠ-বিভ্রাটে ইস্টবেঙ্গল। তবে কলকাতায় নয়, চেন্নাইয়ে গিয়ে মাঠ সমস্যায় বিদ্ধ ইস্টবেঙ্গল।

শুক্রবারের বিকেলেই চেন্নাই সিটি এফসি-র বিরুদ্ধে খেলতে নামার কথা ছিল ইস্টবেঙ্গলের। মোহনবাগান টানা দু-ম্যাচ পয়েন্ট খোয়ানোর পর ইস্টবেঙ্গল অ্যাওয়ে ম্যাচে তিন পয়েন্ট পেলেই বড়দিনের উৎসবের আবহ আরও জোরদার হওয়ার কথা লাল-হলুদ শিবিরে।

এর মধ্যেই খেলা হওয়া নিয়ে তীব্র অনিশ্চয়তা। মাঠে নামতে তীব্র আপত্তি জানাচ্ছে ইস্টবেঙ্গল। কেন? চেন্নাইতে থাকা ইস্টবেঙ্গলের শীর্ষ কর্তা নীতু সরকার এবেলা.ইনকে বললেন, ‘‘মাঠ খোঁয়াড়ের থেকেও অধম। কমপক্ষে একশো গর্ত রয়েছে। এই অবস্থায় মাঠে নামার অর্থ ফুটবলারদের বিপদের দিকে ঠেলে দেওয়া।’’ সূত্রের খবর, ইস্টবেঙ্গলকে সন্তুষ্ট করতে আয়োজক ক্লাবের পক্ষ থেকে শেষ মুহূর্তে বালি দিয়ে মাঠ ভরাট করার প্রচেষ্টা করা হয়েছে। তবুও বিবর্ণ এবড়ো খেবড়ো মাঠে নামতে রাজি নয় ইস্টবেঙ্গলই।

চেন্নাইয়ের মাঠের বিবর্ণ দশা। আপত্তি জানাচ্ছে ইস্টবেঙ্গল। — ইস্টবেঙ্গল সমাচার ফেসবুক পেজ

আপাতত শেষ মুহূর্তে ম্যাচ কমিশনারের রিপোর্টের উপর ভরসা করে রয়েছে লাল হলুদ কর্তারা। চোটআঘাত সমস্যায় মোহনবাগান ক্রমশই চোরাবালিতে তলিয়ে যাচ্ছে। পড়শী ক্লাবের দুর্দশার হাওয়া যাতে মশাল তোলা ক্লাবে না ঢোকে, তা নিয়েই আপাতত সচেষ্ট ক্লাব কর্তারা।

বিশ্বকাপের পরেই জাঁকজমকে শুরু হয়েছে আইএসএল। গ্ল্যামার আর বৈভবের মাঝেই আইলিগের এমন কাণ্ড বুঝিয়ে দিল দেশের ফুটবল সেই তিমিরেই।