ভক্তের লেখা আন্তরিক একটা চিঠি। রোমে যা হাতে পাওয়ার পর প্রত্যাবর্তনের যুদ্ধে ঘুরে দাঁড়ানোর নতুন প্রেরণা খুঁজে পাচ্ছেন মারিয়া শারাপোভা। বিতর্ক-বিধ্বস্ত রুশ সুন্দরী চিঠিতে এতটাই আপ্লুত যে, অক্ষরগুলো ক্যামেরাবন্দি করে তুলে দিয়েছেন ইনস্টাগ্রামে। জানিয়েছেন, চিঠির বক্তব্য তাঁকে নিজের প্রতি সৎ থাকার শক্তি জোগাচ্ছে।

ই’মেলের যুগে চিঠিটা নজরও কাড়ে। সাদার উপর কালো চৌখুপি কাটা কাগজে কালো কালিতে হাতে লেখা। প্রতিটি অনুচ্ছেদে আলাদা বিষয়। শারাপোভার সবচেয়ে মনে ধরেছে যে অনুচ্ছেদটি তার প্রথম লাইন— ‘সুন্দর বলতে আসলে কী বোঝায়?’।

শারাপোভা লিখেছেন, ‘চিঠিটা পেয়েছিলাম রোমে। প্রেরণা দিচ্ছে। বিশেষ করে চিঠিতে সৌন্দর্য্য নিয়ে অংশটা রীতিমতো শক্তিশালী। মূল বার্তাটা অসম্ভব সুন্দর— নিজের মতো হও, নিজের প্রতি সৎ থাক।’ চিঠি পড়ে ঠিক সেটাই করার সিদ্ধান্তও নিয়েছেন রুশ গ্ল্যামার রানি। ‘নিজের মতো হওয়ার বার্তাটা দারুণ। সে জন্যই আজ নিজের চেয়ে সাইজে বড়, ঢিলেঢালা পুরুষদের পোশাক পরব। চুলটা তুলে খোঁপা। পায়ে আরামদায়ক জুতো,’ লিখেছেন শারাপোভা।

অবশ্য ‘লাল ঠোঁট’ আর ‘বক্ষ প্রদর্শন’এর মতো লেখকের দু’একটা শব্দচয়ন মাশাকে ধাক্কাও দিয়েছে। তবে বক্তব্যের নির্যাসে তিনি মুগ্ধ।

চিঠিতে সৌন্দর্য্যের ব্যাখ্যা এই রকম: ‘সমাজের তৈরি মাপদণ্ডে যার কিছু আসে যায় না, লাল ঠোঁট, বক্ষ প্রদর্শন, মোহিনী আবেদন। যেখানে মেকআপের প্রয়োজন নেই, পোশাক সেটাই যা পরলে নিজেকে নিজের মতো লাগে। সুন্দরের নতুন সংজ্ঞা নিজেই ঠিক করা। শরীর আর মনকে যুক্ত করে এমন সত্যিকারের আত্মবিশ্বাস। আর দু’চোখের ওই প্রখর চাহনিটা।’

সব মিলিয়ে ভক্তদের লেখা গড়পড়তা চিঠির থেকে একেবারে ভিন্ন। চিঠির রচনাকার যে কারণে স্পর্শ করেছেন মারিয়ার হৃদয়। ফরাসি ওপেনে পাননি ওয়াইল্ড কার্ড। রোমে নতুন উদ্বেগ নিয়ে এসেছে উরুর চোট। জীবনের কঠিন মোড়ে কালি-কাগজে মোড়া ভক্তের অবেগটুকু আলোর নতুন সন্ধান দিচ্ছে মাশাকে।