দীর্ঘদিনের প্রেম। তার পর পালিয়ে গিয়ে বিয়ে। শেষে নাবালিকা বধূর পরিণতি হল ভয়ানক।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

সোমবার সকালে নদিয়ার গাঙনাপুরের হুমনিয়াপতা গ্রাম থেকে উদ্ধার হয় এক কিশোরীর দেহ। মৃতের নাম মৌমিতা মণ্ডল(১৬)। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী মৌমিতা পাঁচ মাস আগে পালিয়ে গিয়ে বছর ২৭ এর যুবক মনসুর মণ্ডলকে বিয়ে করে। 

মৌমিতার বাবার অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই মৌমিতার কাছ থেকে নিয়মিত টাকা চাওয়া হত। সেই দাবি মতো টাকা না দেওয়ার জেরেই মারধর করা হত মৌমিতাকে। মাঝেমধ্যে মৌমিতা ফোন করে একথা জানাত বলে দাবি করেছেন তার বাবা রাজ্জাক মণ্ডল। 

দেখুন ভিডিও—

 

মৌমিতার বাবার দাবি, তাঁদের ফোন করে বলা হয় মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু সেখানে গিয়ে তাঁরা দেখেন শ্বশুরবাড়ির সবাই বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে। রাজ্জাক মণ্ডলের অভিযোগ, শ্বাসরোধ করেই খুন করা হয়েছে মৌমিতাকে। তার পর দেহ ফেলে রেখে চম্পট দিয়েছে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা।

মৌমিতার স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের বিরুদ্ধে গাঙনাপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন রাজ্জাক। অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।