মা এবার কীসে আসছেন? যাচ্ছেনই বা কীসে? পুজো কাছে এসে পড়লে প্রতি বারই এই সব প্রশ্ন জেরবার করে তোলে বাঙালিকে। উত্তরের খোঁজে পঞ্জিকা ঘেঁটে জেনে নিতে হয় এবার ঘোড়া, হাতি, নৌকা না দোলা? 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

প্রাচীন কাল থেকেই দেবীর আগমন ও গমনের জন্য নানা ধরনের যান-বাহনের উল্লেখ মেলে শাস্ত্রে। কখন কোন বাহন ব্যবহার করবেন দেবী দুর্গা, সেই সূত্রও বলা আছে। সহজ এই নিয়মটুকু জেনে নিলে নিজে নিজেই হিসেব কষে বলে দেওয়া যায়, কোন বছর মা দুর্গা কীসে আসছেন, কীসেই বা যাচ্ছেন।


দুর্গার আগমন-গমনের সূত্র। গ্রাফিক্স: অভিজিৎ বিশ্বাস

মা দুর্গার আগমন-গমনের সহজ হিসেব

মাথায় রাখতে হবে পুজোর সপ্তমীতে দুর্গার আগমন। আর, গমন দশমীতে। এই দুই দিন সপ্তাহের কোন বারে পড়ছে, তার উপরই নির্ভর করে দেবী কীসে আসবেন বা কীসে যাবেন।

শাস্ত্রে বলা হয়েছে—
‘রবৌ চন্দ্রে গজারূঢ়া ঘোটকে শনি ভৌময়োঃ।
গুরৌ শুক্রে চ দোলায়াং নৌকায়াং বুধবাসরে।।’

শুরুতেই বলা হচ্ছে, ‘রবৌ চন্দ্রে গজারূঢ়া’। অর্থাৎ, সপ্তমী যদি রবিবার বা সোমবার হয়, তাহলে দুর্গার আগমন হবে গজে বা হাতিতে। একই ভাবে, দশমীও রবি বা সোমে পড়লে দুর্গার গমন হবে গজে।

এর পর বলা হচ্ছে, ‘ঘোটকে শনি ভৌময়োঃ’। অর্থাৎ শনি বা মঙ্গলবার সপ্তমী পড়লে দেবীর আগমন হবে ঘোটকে বা ঘোড়ায়। দশমীও শনি বা মঙ্গলে পড়লে গমনও হবে ঘোটকে।

তার পর রয়েছে, ‘গুরৌ শুক্রে চ দোলায়াং’। বৃহস্পতি বা শুক্রবারে সপ্তমী পড়লে দেবী দোলায় আসবেন। আর, দশমী পড়লে দেবী দোলায় যাবেন।

সব শেষে বলা হচ্ছে, ‘নৌকায়াং বুধবাসরে’। অর্থাৎ, বুঝবার সপ্তমী পড়লে দেবীর নৌকায় আগমন এবং দশমী পড়লে নৌকায় গমন।


দুর্গার আগমন-গমনের হিসেব। গ্রাফিক্স: অভিজিৎ বিশ্বাস

এই হল সপ্তাহের সাত দিনের নিয়ম। এটুকু জানলেই দেবীর আগমন ও গমনের হিসেব কষে নেওয়া যায় সহজে। যেমন এই বছর দুর্গাপুজোর সপ্তমী পড়েছে মঙ্গলবার। অর্থাৎ হিসেব মতো এ বার দেবীর আগমন ঘোটকে। আবার, দশমী পড়েছে শুক্রবার। ফলে দেবীর গমন হবে দোলায়।