বিদেশি ব্যাঙ্কে গচ্ছিত কালো টাকা উদ্ধার করতে না পারলেও বেশ কয়েক কদম এগিয়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকার। এবার দেশের কর ফাঁকি ধরতে বড় পদক্ষেপ।

নোটবাতিল ঘোষণার সময় থেকেই কালো টাকা উদ্ধারে একের পর এক পদক্ষেপ করে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। তারই এক ধাপ এই তালিকা প্রকাশ। আয়কর দফতর দেশের ২৪ ব্যাক্তি বা সংস্থার তালিকা প্রকাশ করল যারা প্রায় ৪৯০ কোটি টাকার কর ফাঁকি দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন দিয়ে এই কর ফাঁকি দেওয়া ব্যক্তি ও সংস্থার উদ্দেশে আয়কর দফতরের বার্তা— অবিলম্বে বকেয়া কর জমা করতে হবে। শুধু নাম নয়, কোম্পানি বা ব্যক্তির যাবতীয় পরিচয়, প্যান, ট্যান, কর ফাঁকির পরিমাণ সবই প্রকাশ করেছে আয়কর দফতর।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

এই তালিকায় খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, শেয়ার বিক্রেতা, সফটওয়্যার কোম্পানি থেকে প্রোমোটার সবই রয়েছে। সব থেকে বেশি কর ফাঁকি দিয়েছে দিল্লি কেন্দ্রীক সংস্থা মেসার্স স্টক গুরু। সংস্থার অন্যতম কর্তা লোকেশ্বর দেব ফেরার। পাওনা ৮৬.২৭ কোটি টাকা। এই সংস্থা শেষ দু’টি আর্থিক বছরের কর জমা করেননি। তবে এমন অনেক সংস্থাও রয়েছে যাদের কর ফাঁকি চলছে ১৯৮৯-৯০ আর্থিক বর্ষ থেকে।

এর পরেই রয়েছে কলকাতার দু’টি নাম। অর্জুন সোনকার নামের কলকাতাবাসী ৫১.৩৭ কোটি টাকা কর ফাঁকি দিয়ে ফেরার। আরও এক কলকাতাবাসী কিষেণ শর্মা ফাঁকি দিয়েছেন ৪৭.৫২ কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, গত কয়েক বছর ধরেই এই নতুন পথ নিয়েছে আয়কর দফতর। কর ফাঁকির এমন তালিকা প্রকাশ করা হচ্ছে নিয়মিত। এখনও পর্যন্ত মোট এমন ৯৬টি নাম প্রকাশ করা হল।