শুরুতে বড় চমক। তার পর একের পর এক আকর্ষনীয় অফার। টেলিকম ইন্ড্রাস্টির কাঠামোটাই বদলে দিয়েছিল রিলায়েন্স জিও। কিন্তু এখন জিও ডাউনলোড স্পিড নিয়ে প্রশ্ন দেখা গিয়েছে। ট্রাইয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, তিন মাসের মধ্যে ৩৩ শতাংশ ডাউনলোড স্পিড কমে গিয়েছে জিও’র।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

শুরুতে চমক দিয়ে একাধিপত্য বিস্তার করলেও, এখন জিও কে সমান তালে টেক্কা দিয়ে যাচ্ছে এয়ারটেল, ভোডাফোন, আইডিয়া। ট্রাইের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এই বছরে এই নিয়ে দুবার কমে গিয়েছে জিও-র নেট স্পিড। তথ্য অনুযায়ী, এপ্রিল মাসে জিও’র ডাউনলোড স্পিড ছিল ১৪.৭ এমবিপিএস। কিন্তু তার দু’মাস আগেই জিও’র স্পিড ছিল ২১.৩ এমবিপিএস। গত বছর ডিসেম্বর মাসে জিও’র ডাউনলোড স্পিড ছিল ২৫.৬ এমবিপিএস। 

তবে স্পিড কমলেও এখনও প্রথম স্থানেই রয়েছে জিও। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এয়ারটেল, ডাউনলোড স্পিড ৯.২ এমবিপিএস। আইডিয়া ও ভোডাফোনের ডাউনলোড স্পিড যথাক্রমে ৭.৪ এমবিপিএস এবং ৭.১ এমবিপিএস। 

অন্য দিকে আপলোড স্পিডে জিও চলে গিয়েছে একেবারে তৃতীয় সারিতে। সমীক্ষা অনুযায়ী, ৬.৫ এমবিপিএস আপলোড স্পিড দিয়ে প্রথম স্থান দখল করেছে আইডিয়া। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভোডাফোন। এর আপলোড স্পিড ৫.২ এমবিপিএস। ৪ এমবিপিএস আপলোড স্পিড দিয়ে তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে জিও। চতুর্থ স্থানে থাকা এয়ারটেলের আপলোড স্পিড ৩.৭ এমবিপিএস। 

এখন দেখার জিও এই প্রতিযোগিতার বাজার নিজের জায়গা ধরে রাখতে, কী নতুন কৌশল নেয়।