গুলি করে হত্যা এবার দেশের তারকা বক্সার। জাতীয় স্তরে বেশ পরিচিত বক্সার ছিলেন জিতেন্দর মান। তবে আততায়ীর সঙ্গে পারলেন না দিল্লির হয়ে জোড়া সোনা, একটি করে রুপো এবং ব্রোঞ্জজয়ী এই বক্সার। গত শুক্রবার নয়ডায় নিজের অ্যাপার্টমেন্টে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রক্তাপ্লুত জিতেন্দরকে পাওয়া যায়। দুপুরে তাঁর ফ্ল্যাট থেকে দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পুরো বিষয়টি নিয়েই এখনও ধোঁয়াশায় পুলিশ।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে বলা হয়েছে, জাতীয় স্তরের পাশাপাশি বেশ কিছু আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টেও অংশগ্রহণ করেছেন মান। বর্তমানে একটি জিমের ইনস্ট্রাক্টর হিসেবে কাজ করছিলেন তিনি। চোটের কারণে ৭ মাস আগে বক্সিং ছেড়ে দিয়েছিলেন। এক পুলিশ আধিকারিক বিবৃতিতে বলেছেন, জানুয়ারি মাসের ১০ তারিখে জিতেন্দর জিমের মালিককে বলেছিলেন, তিনি সন্ধ্যার শিফটে আসবেন না কিছু ব্যক্তিগত কাজ থাকায়। তার পর থেকে আর জিমেই যাননি তিনি। আর এ বার এল তাঁর মৃত্যু সংবাদ।

ফোন করে জিতেন্দরকে পাননি তাঁর মা–বাবা। দক্ষিণ দিল্লির বাড়ি থেকে ছেলের খোঁজ নিতে সুরজপুরের ফ্ল্যাটে চলে আসেন তাঁরা। সঙ্গে বন্ধু প্রীতম টোকাস। তবে ঘরে ঢুকেই জিতেন্দরকে মৃত অবস্থায় পেয়ে শিউরে ওঠেন তাঁরা। সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় স্থানীয় পুলিশকে।

কে বা কারা জিতেন্দরকে হত্যা করেছে তা পুলিসের কাছে এখনও পরিষ্কার নয়। পুলিশ গোটা বিষয়টির তদন্ত শুরু করেছে। সুরজপুর থানায় অজ্ঞাত আততায়ীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয়েছে। পোস্ট মর্টেমের রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছে পুলিশ। তল্লাশি চালানো হচ্ছে আততায়ীর খোঁজে।