জোকা-বিবাদী বাগ মেট্রো রেলের কাজ বন্ধ করে দিল রাজ্য সরকার। মাঝেরহাট ব্রিজ নিয়ে তদন্ত করবে ইন্সপেকশন ও মনিটরিং সেল। তাদের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত মেট্রো রেলের কাজ বন্ধ থাকবে।

মেট্রো রেলের কাজের জন্যই মাঝেরহাট ব্রিজ দুর্বল হয়ে পড়েছিল। তার জন্যই ভেঙে পড়েছে এই ব্রিজ। এমন ইঙ্গিত আগেই দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তদন্তে তাও খতিয়ে দেখা হবে। 

‘‘মেট্রোর কাজ যখন শুরু হয়েছিল আমি রেলমন্ত্রী ছিলাম। ৯ বছর ধরে কাজ চলছে। আমি সব জানি। সবাই এখন অভিযোগ করছে মাটির পাইলিং-এর জন্য কম্পন হচ্ছে। আমি বলছি না যে এর জন্যই ব্রিজ ভেঙে পড়েছে। তবে মুখ্যসচিবের নেতৃত্বে কমিটি তা খতিয়ে দেখবে, তার পরেই যা বলার বলা যাবে,’’ বলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

একই সঙ্গে বিভিন্ন ব্রিজে ২০ চাকার ভারী লরি, ট্রাক, কন্টেনার চলাচল বন্ধ করে দিচ্ছে রাজ্য সরকার। এ ব্যাপারে কলকাতা পুলিশ যথাযথ সিদ্ধান্ত নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করবে। 

মুখ্যমন্ত্রী বৃহস্পতিবার উচ্চপর্যায়ের বৈঠকের পরে জানান, সাঁতরাগাছি ও উলটোডাঙা ব্রিজও দুর্বল। সেখানেও ভারী লরি চলাচল করবে না। 

মাঝেরহাট ব্রিজ ভাঙা নিয়ে এদিনও দায় নিতে চাননি মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন এটি কংগ্রেস আমলে তৈরি হয়েছিল। কলকাতা পোর্ট ট্রাস্ট তৈরি করেছিল। তার পরে পূর্ত দফতরের হাতে আসে। ফলে তৃণমূল সরকারের কিছু করার নেই বলেই দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী। 

শিয়ালদহ ব্রিজ মেরামতির সময় সেখানকার ব্রিজের তলার দোকানদারদের থেকে বাধা এসেছিল বলেও এদিন অভিযোগ ওঠে।

পোস্তা ব্রিজ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী জানান যে আইআইটির অধ্যাপকেরাও নির্দিষ্ট করে বলতে পারেননি যে ব্রিজটি পুরো ভেঙে ফেলা হোক নাকি সেটি অন্য ভাবে ব্যবহার করা হবে। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, পোস্তা ব্রিজ পুরো ভাঙতে গেলে অনেক বাড়িও ভাঙা পড়বে।