এই সপ্তাহেও ১৫+ আরবান টিআরপি তালিকায় বেঙ্গল টপার জি বাংলা-র ‘কৃষ্ণকলি’ (১১.৩)। দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে রয়েছে দু’টি পিরিয়ড ধারাবাহিক এবং একটি সোশ্যাল ড্রামা আগের সপ্তাহের মতোই। শুধু এবারে স্থানের রদবদল ঘটেছে। এই সপ্তাহে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ‘করুণাময়ী রাণী রাসমণি’ ৯.৫ রেটিং নিয়ে। তৃতীয় স্থানে রয়েছে ‘জয় বাবা লোকনাথ’ ৮.৮ রেটিং নিয়ে। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

‘বকুলকথা’ নেমে এসেছে চতুর্থ স্থানে ৮.৭ রেটিং নিয়ে ও পঞ্চম স্থানে রয়েছে ‘জয়ী’ (৮.১)। অর্থাৎ সেরা পাঁচের মধ্যে চারটি ধারাবাহিকই নারীকেন্দ্রিক। তার মধ্যে মাত্র একটিই পিরিয়ড এবং বাকি তিনটি নারীকেন্দ্রিক ধারাবাহিকই সোশ্যাল ড্রামা। মাস ছয়েক বা বছরখানেক আগেও যে ট্রেন্ড দেখা গিয়েছিল, সেখানে এগিয়ে ছিল পিরিয়ড ড্রামা। কিন্তু ‘কৃষ্ণকলি’, ‘বকুলকথা’ ও ‘জয়ী’-র ক্রমবর্ধমান টিআরপি এটাই প্রমাণ করে যে ভাল মেকিং, ভাল কাস্টিং এবং ভাল গল্প থাকলে দর্শক এখনও সোশ্যাল ড্রামা দেখতে সমান ভাবে আগ্রহী। 

যাঁরা বলেন যে দর্শক আর সাংসারিক গল্প দেখতে চাইছেন না, টিআরপি রেটিং কিন্তু উল্টো কথা বলছে। এবং এই ট্রেন্ড যে শুধু জি বাংলা-র ক্ষেত্রে তা নয়, স্টার জলসা-র ধারাবাহিকগুলির ক্ষেত্রেও কিন্তু তাই। এই সপ্তাহের ওই চ্যানেলের সেরা ‘কে আপন কে পর’, তার পরেই রয়েছে ‘ফাগুন বউ’। নীচে দেখে নিতে পারেন এই সপ্তাহের সেরা দশের বাকি ধারাবাহিক ও তাদের রেটিং— 

ষষ্ঠ— ‘সীমারেখা’ (৭.৪)

সপ্তম— ‘সাত ভাই চম্পা’ (৬.৯) 

অষ্টম— ‘কে আপন কে পর’ (৬.৮)

নবম— ‘ফাগুন বউ’ (৬.৭)

দশম— ‘দেবী চৌধুরাণী’ (৬.৪)