জম্মু ও কাশ্মীরের কাঠুয়ায় ঘটে যাওয়া নৃশংস ধর্ষণ ও খুনের ফয়সলার ভার পড়েছে আইনজীবী দীপিকা সিংহ রাজাওয়াতের উপরে। দীপিকার নিজস্ব ঘরে কাজের টেবিলে একটি মিষ্টি গোলগাল মেয়ের ছবি রাখা আছে। তার নাম অষ্টমী। বয়স মাত্র ৫। সে দীপিকার কন্যা, তার জন্যই আরও এই কেস লড়ছেন তিনি।

জানুয়ারী মাসে ঘটে যাওয়া আসিফার কেস দীপিকার দায়িত্বে আসার পর থেকেই তিনি হুমকি পেতে শুরু করেন। এমনকী, তাঁকে এই কেস ছেড়ে দিতেও বলা হয়। শুধু তাই নয়, জম্মু ও কাশ্মীরের ক্রাইম ব্রাঞ্চ থেকে কেস সিবিআইকে হস্তান্তর করে দেওয়ার চেষ্টা চালানো হয়। এরকম পরিস্থিতিতেও নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন দীপিকা।

দীপিকা কন্যা ছোট্ট অষ্টমীর হাতেও প্রতিবাদের ভারী শব্দ। ছবি- দীপিকার ফেসবুক প্রোফাইল। 

ক্ষুব্ধ হয়ে ৫ এপ্রিল ফেসবুকে তিনি লেখেন, জম্মু হাইকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি তাঁর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছেন। সংসদ বহির্ভূত ভাষায় তাঁকে হুমকি দিয়েছেন। বলেছেন যে, আইনজীবীদের ধর্মঘট চলাকালীন এই বিষয়ে তিনি যেন নাক না গলান।

 

৫ এপ্রিল করা দীপিকার সেই সাহসী পোস্ট

কিন্তু এত কিছুর পরও দমে যাননি দীপিকা। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া একটি প্রতিবেদনে তিনি জানান, ‘‘আমারও মেয়ে আছে। ৫ বছর বয়স তার, নাম অষ্টমী। এই কেস আমি তার জন্যও লড়ছি।’’ অমানবিক নির্যাতন সইতে হয়েছে আসিফাকে। সেই অসহায় শিশুর মুখচ্ছবিই যেন নিজের ছোট্ট মেয়ের মুখে দেখতে পাচ্ছেন দীপিকা। আর মনে মনে প্রস্তুত হচ্ছেন লড়াইয়ের জন্য। কোনও হুমকিতে টলে যেতে তাই নারাজ তিনি।