রাজ্য বিজেপি’র মঞ্চ-আতঙ্ক কাটছে না! মেয়ো রোডে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের সমাবেশে মঞ্চ তৈরি নিয়ে গৈরিক শিবিরের অন্দরে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব অব্যাহত। 
গত জুলাইয়ে মেদিনীপুরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কিসান সভায় কাঠামো ভেঙে বিপত্তি হয়েছিল। তা নিয়ে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছিল বিজেপি’র রাজ্য নেতৃত্বকে। আগামী ১১ অগস্ট বিজেপি যুব মোর্চার ডাকে মেয়ো রোডে অমিতের সভা। কিন্তু সেই মঞ্চ কে বা কারা তৈরি করবেন, তা এখনও ঠিক করে উঠতে পারেনি বিজেপি। আগামিকাল, শনিবার দলের কেন্দ্রীয় পরিদর্শকেরা এলাকা পর্যবেক্ষণের পরে ওই ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যে ডেকরেটার সংস্থাকে দিয়ে ওই মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল, তাদের আদৌ ডাকা হবে কি না, তা নিয়েও উঠেছে বিতর্ক। 

অমিত ছাড়াও ১১ ই অগস্টের সভায় হাজির থাকার কথা জাতীয় যুব মোর্চা নেত্রী পুনম মহাজনের। যুব মোর্চার কর্মীদের একাংশ মনে করেন, ওই ডেকরেটার সংস্থা সঠিকভাবে মঞ্চ তৈরি করেছিল। কিন্তু বৃষ্টির সময়ে মঞ্চের অবস্থা কী হতে পারে তা দেখার দায়িত্ব ছিল রাজ্য প্রশাসনের। সেই দায়িত্ব পালনে গলদ ছিল। কীভাবে এবং কোথায় মঞ্চ হবে, বৃষ্টির সময়ে কী সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে— তা দেখার দায়িত্ব কখনোই ঠিকাদারের উপর বর্তায় না। 
রাজ্য যুব মোর্চার সভাপতি দেবজিৎ সরকার বলেন, ‘‘কোন ডোকরেটার বা সংস্থাকে মঞ্চ তৈরি করতে দেওয়া হবে, তা আলোচনার পরেই ঠিক হবে। নির্দিষ্টভাবে কারও কথা এখন বলা যাবে না। এটি একটি জাতীয় সমাবেশ।’’ ওই মঞ্চ দলীয় নেতারা দেখা ছাড়াও প্রশাসনেরও দায়িত্ব থেকে যায়। 
মেয়ো রোডে যুব মোর্চার সভাস্থল সেনাবাহিনীর আওতায় পড়ে। ফলে সেনার অনুমতির প্রয়োজন ছিল। দেবজিৎ জানান, এদিন ওই অনুমতি পাওয়া গিয়েছে। যুব মোর্চার ওই সভা ঘিরে পুলিশের অনুমতি নিয়েও সমস্যা হয়েছিল। পাঁচটি এলাকায় ওই সভার অনুমতি চাওয়া হলেও শেষে মেয়ো রোডে সভার অনুমতি মিলেছে।