কেরলে বন্যা দুর্গতের ৭০০ কোটি টাকা দেওয়ার কথা নাকি বলেইনি সংযুক্ত আরব আমিরশাহি! এমনই দাবি ঘিরে নতুন করে বিতর্ক বেঁধেছে রাজনৈতিক মহলে।

অথচ এই ৭০০ কোটি টাকা ভারত সরকার নেবে কি নেবে না, তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়ে গিয়েছিল। এখন বিজেপির মিডিয়া সেলের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, এমন কোনও সাহায্যের কথা ঘোষণাই করেনি আমিরশাহী সরকার।

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে আমিরশাহির দূতাবাসের অফিসারদের উদ্ধৃত করে দাবি করা হয়েছে, তাঁরা সত্যিই সাহায্যের কোনও অঙ্ক ঘোষণা করেননি।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

তাহলে এই খবর রটাল কে? দেখা যাচ্ছে, প্রথমে ১৮ অগস্ট নরেন্দ্র মোদী টুইট করে সংযুক্ত আরব আমিরশাহির প্রেসিডেন্ট শেখ মহম্মদ আল মক্তোমকে ধন্যবাদ জানান কেরলের দুর্গতের সাহায্যের প্রস্তাব দেওয়ার জন্য। 

তার পরেই অগস্টের ২১ তারিখ কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরশাহি সরকার ৭০০ কোটি টাকা সাহায্য করতে চাইছে।

তা হলে কি বিজয়ন মিথ্যে কথা বলেছিলেন? নতুন করে বিতর্ক শুরু হওয়ার পরে শুক্রবার কেরলের মুখ্যমন্ত্রী বলছেন, তাঁকে এই টাকার অঙ্কের কথা বলেছিলেন প্রবাসী ভারতীয় ব্যবসায়ী এমএ ইউসুফ আলি। 

‘‘আমি তাঁকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম যে, এই সাহায্যের কথা জনসমক্ষে বলা যাবে কি না। তিনি বলেছিলেন, কোনও অসুবিধা নেই’’, সাংবাদিকদের বলেন বিজয়ন।

 

ইউসুফ আলিকে নাকি আমিরশাহি সরকারের পক্ষ থেকে এই সাহায্যের কথা বলা হয়েছিল, যখন তিনি সে দেশের রাজপুত্রের সঙ্গে বকর-ইদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে গিয়েছিলেন।

কিন্তু কেরলের বন্যার জল নামতে না নামতেই সংযুক্ত আরব আমিরশাহির সাহায্যের প্রস্তাব নিয়ে জল যে বিস্তর ঘোলা হয়েছে, সে কথা বলাই যায়।