টার্গেট ছিল ফেসবুকের মহিলারা। প্রথমে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠানো হত মহিলাদের অ্যাকাউন্টে। তার পর রিকোয়েস্ট অ্যক্টসেপ্ট হলেই মহিলাদের প্রোফাইল থেকে ডাউনলোড করে নেওয়া হত একের পর এক ছবি। পরে সেই ছবি দিয়ে তৈরি করা হতো ফেক প্রোফাইল। দেওয়া হতো সেক্সুয়াল সার্ভিসের ‘অফার’। এমনই ফাঁদ পেতে এখন শ্রীঘরে দিন কাটাচ্ছে এক যুবক।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

ফেসবুকে মহিলাদের ছবি ডাউনলোড করে তা দিয়ে ভুয়ো প্রোফাইল খুলে সেক্সুয়াল সার্ভিসের অফার দেওয়ার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃতের নাম মহম্মদ রাজিল। বাগুইআটির বাসিন্দা এক মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে রাজিলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জানা গিয়েছে, ধৃত রাজিল প্রায় ১০ মাস আগে ওই মহিলার নামে ভুয়ো প্রোফাইল তৈরি করে। ওই মহিলা কয়েকজন আত্মীয়ের কাছ থেকে বিষয়টি জানতে পারেন। তার পরেই পুলিশের কাছে অভিযোগ জানান তিনি।

দেখুন ভিডিও—

 

সূত্রের খবর, রাজিলের বাবা কারখানায় কাজ করেন। ছোট থেকেই উচ্চাকাক্ষ্ণী হওয়ার স্বপ্ন ছিল রাজিলের। দামী মোবাইল ও বাইক কেনার ইচ্ছা ছিল তার। কিন্তু বাড়িতে আবদার করেও তার শখ পূরণ হয়নি। এর পরেই মহিলাদের নামে ভুয়ো প্রোফাইল খোলার ফন্দি আঁটে সে। প্রতিটি প্রোফাইলে একটি মোবাইল নম্বর ও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বর দেওয়া হতো। ভুয়ো প্রোফাইল খুলে বিভিন্ন ব্যক্তিদের কাছ থেকে সেক্সুয়াল সার্ভিসের বিনিময়ে টাকা চাওয়া হতো।

তবে শুধু রাজিলই নয়, এই চক্রে আরও বেশ কয়েকজন জড়িত থাকতে পারে বলে অনুমান করছে পুলিশ। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শুরু করেছে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ।