দক্ষিণ আফ্রিকার একটি শহর এস্টকোর্ট। যেখানে সম্প্রতি ঘটে গিয়েছে এক অদ্ভুত ব্যাপার। 

শহরের জনৈক বাসিন্দা হঠাতই একদিন স্থানীয় থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করে বলে যে , তার আর মানুষের মাংস খেতে ভাল লাগছে না। প্রমাণস্বরূপ পুলিশের হাতে তুলে দেয় মানুষের একটি হাত ও পা। এর পরে, লোকটি নিজেই পুলিশকে নিয়ে যায় তার বাড়িতে। যেখানে মনুষ্যদেহের আরও অংশ পাওয়া যায়। 

ঘটনায় জড়িত আরও তিন সন্দেহভাজনকে আটক করে পুলিশ। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, পুলিশ মনে করছে সে অঞ্চলের ধর্ষণ ও খুনের জন্য দায়ী এই চারজনের মধ্যে দু’জন।

২২, ২৯, ৩১ ও ৩২ বছরের চার যুবককে কোর্টে তোলা হলে, তাদের পুলিশ হেফাজতে রাখার আদেশ দেয় কোর্ট। ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে। এক অপরাধীর বাড়িতে একটি বাটির মধ্যে আটটি মানুষের কান পাওয়া যায়। অন্য একজনের বাড়ি থেকে পাওয়া যায় মানবদেহের নানা অঙ্গ ও টিস্যু। 

প্রথমিকভাবে পুলিশ মনে করছে, ওই চার যুবক একজন মহিলাকে হত্যা করে তার শরীর কেটে ফেলে। দেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ রেখে দিয়ে কিছু অংশ তারা খায় বলেও মনে করছে পুলিশ। যে কথা স্বীকারও করেছে চার অপরাধীর একজন।