দু’দিন তার কোনও খোঁজ ছিল না। বাড়ির লোক তাকে তন্ন তন্ন করে খুঁজেছেন। যখন এক প্রকার আশা ছেড়েই দিযেছেন তাঁরা, তখন সকলকে অবাক করে দিয়ে ফিরে এল সে।
 

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘মিরর’-এর প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, ঘটনাটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনার। তিন বছর বয়সি ক্যাসি হাথাওয়ে তার প্রপিতামহীর বাড়ির সামনে আরও দুই শিশুর সঙ্গে খেলছিল। খেলতে খেলতেই সে নিকটবর্তী জঙ্গলে প্রবেশ করে। তার পরে তার আর খোঁজ পাওয়া যায়নি। 

ক্যাসির খোঁজে জঙ্গল তোলপাড় করা শুরু হয়। কয়েকশো মানুষ, হেলিকপ্টার, পুলিশ কুকুর— সব মিলিয়ে এক বিরাট সার্চ পার্টি তার খোঁজে নেমে পড়ে। কিন্তু কোনও ভাবেই তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। তার উপরে সেখানকার আবহাওয়া ক্রমেই খারাপ হতে শুরু করে। প্রবল ঠান্ডার সঙ্গে যুক্ত হয় ভয়ানক বৃষ্টি। ক্যাসির বেঁচে থাকার আশা এক প্রকার ছেড়েই দেন অনুসন্ধানকারীরা। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

দু’দিন এই ভাবেই কেটে যায়। গত বৃহস্পতিবার প্রতিবেশী লিজা ফ্র্যাকার তাঁর কুকুরদের নিয়ে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে খোঁজ চালাচ্ছিলেন। এমন সময়ে এক শিশুর কান্নার আওয়াজ তাঁর কানে আসে। তিনি সঙ্গে সঙ্গে জরুরি পরিষেবা প্রদানকারীদের খবর দেন। এমার্জেন্সি রেসপন্ডার টিমের ক্যাপ্টেন শেন গ্রিয়ার তাঁর দল নিয়ে সেই কান্নার উৎস সন্ধান করতে গিয়ে এক কাঁটা ঝোপে ক্যাসিকে দেখতে পান। ঠান্ডায় সেখানিকটা কাবু হয়ে পড়েছিল। কিন্তু তাকে খুব একটা অসুস্থ বলে মনে হচ্ছিল না।

 
হাসপাতালে ক্যাসি, ছবি: ফেসবুক থেকে 

ক্যাপ্টেন গ্রিয়ার ক্যাসিকে তাঁদের গাড়িতে নিয়ে আসেন। তার শরীর গরম করার চেষ্টা চলতে থাকে। ক্রমেই সুস্থ বোধ করতে থাকে ক্যাসি। অ্যাম্বুল্যান্সে করে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে পরীক্ষা করে দাখা যায়, সমান্য কিছু কাটাছেঁড়া বাদ দিলে সে সম্পূর্ণ সুস্থই রয়েছে। 

ক্যাসিকে জিজ্ঞাসা করা হয়— সে কোথায় ছিল। এর উত্তরে সে যা জানাচ্ছে, তাতে তাজ্জব হয়ে যাচ্ছেন সকলে। ক্যাসির উত্তর, সে এক ভালুকের সঙ্গে বেড়াতে গিয়েছিল। ক্যাসির পিসি ব্রিয়ানা হাথাওয়ে তার ছবি ফেসবুকে আপলোড করে ঘটনাটির বিবরণ দেন। তার পরেই শুরু হয় বিবিধ জল্পনা।


পরিজনের সঙ্গে বহাল তবিয়তেই রয়েছে সে, ছবি: ফেসবুক থেকে

অত্যন্ত খারাপ আবহাওয়ায় খাবার-দাবার ছাড়া, পানীয় জল ছাড়া, কী ভাবে বেঁচে রইল ক্যাসি? আর ভালুকের গল্পটাই বা ঠিক কী? এই সব প্রশ্ন উঠছে ঘটনাটি ঘিরে। প্যারানর্মাল তাত্ত্বিকরা বলছেন, সে কোনও পোর্টাল মারফত অন্য কোনও টাইম ডাইমেনশনে চলে গিয়েছিল। এই দাবি মেনে নিতে পারছেন না যুক্তিবাদীরা। 

ব্রিয়ানা অবশ্য জানিয়েছেন, তাঁর ভাইপো রাশিয়ান কার্টুন ভালুক ‘মাশা দ্য বিয়ার’-এর বিরাট ভক্ত। সেখান থেকেই সে কিছু একটা কল্পনা করেছে। কিন্তু তাতেও দেখা দিয়েছে ভিন্ন মত। অনেকেই আবার বলছেন, তার নিজের কল্পলোকে হারিয়ে গিয়েছিল ক্যাসি। এমন ঘটনা হলিউডি ফিলমে ঘটে। কিন্তু বাস্তবে ঠিক কী ঘটেছিল, তা নিয়ে রহস্য থেকেই যাচ্ছে।