অন্য কেউ নয়। নিজের মেয়ে ঈশা এবং ছেলে আকাশ অম্বানীর কথাতেই জিও-র ব্যবসা শুরু করার কথা ভেবেছিলেন রিলায়েন্স কর্ণধার মুকেশ অম্বানী। লন্ডনের একটি আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পুরস্কার প্রদানের মঞ্চেই এই রহস্য ফাঁস করেছেন মুকেশ। 

মুকেশ জানিয়েছেন, মোবাইল এবং টেলি কমিউনিকেশন ব্যবসায় পা দেওয়ার ভাবনা ২০১১ সালে তাঁর মাথায় আসে। সেই সময়ে আমেরিকার ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে পাঠরত ঈশা ছুটিতে কয়েকদিনের জন্য বাড়িতে আসেন। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি প্রজেক্ট নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন তিনি।

মুকেশের কথায়, ইন্টারনেট স্পিড কম থাকার জন্য প্রজেক্টের কাজ করতে গিয়ে সমস্যায় পড়েন ঈশা। সেই কথা জানান মুকেশকে। তখনই একটু একটু করে টেলিকম ব্যবসার বাবনা দানা বাঁধতে শুরু করে। 

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

মুকেশ জানিয়েছেন, বিষয়টি জানতে পেরে ছেলে আকাশও তাঁকে বলেন, ভবিষ্যতে ডিজিটাল যুগ অপেক্ষা করছে। সব কাজই হবে ডিজিটাল প্রযুক্তির সাহায্যে। আকাশ তাঁকে আরও দেখান, শুধুমাত্র ফোনে কথা বলার জন্যই বিভিন্ন সংস্থা কীভাবে গ্রাহকদের থেকে টাকা নিচ্ছে। এর পরেই বাবাকে মোবাইল পরিষেবার ব্যবসায় নামার অনুরোধ করেন আকাশ।

মুকেশ বলেন, সেই সময়ে এমন পরিস্থিতি ছিল যে, গোটা দেশে ইন্টারনেট পরিষেবার মান অত্যন্ত খারাপ ছিল। নয়তো মোবাইল ডেটার মাশুল এতটাই চড়া ছিল যে, অধিকাংশ মানুষের পক্ষেই সেই খরচ বহন করা সম্ভব ছিল না। সেই কারণেই গোটা দেশে সস্তায় ইন্টারনেট পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্য নিয়ে ২০১৬ সালে বাজারে জিও নিয়ে আসেন তিনি। এর পরেই ভারতের মোবাইল পরিষেবা ব্যবসায় আমূল বদল আসে। শুরু হয় সস্তায় পরিষেবা দেওয়ার তুমুল লড়াই।