তার জন্ম হয়েছিল ১৯৫৮ সালে। তার পর থেকে লাগাতার নানা ধরনের মহাজাগতিক কীর্তিকলাপ ঘটিয়ে চলছে এই সংস্থা।

মহাশূন্যের নানা ঘটনার কথা পৃথিবীবাসিকে জানানোর মহান কাজ করে চলেছে নাসা। বিভিন্ন সময়ে মহাকাশে স্যাটেলাইট পাঠিয়ে ভিন গ্রহ সম্পর্কেও নানা তথ্য জানিয়েছে এই সংস্থা। 

২০১৮ সালে ৬০ বছরে পা দিল নাসা। এবং এ বছরে তার নানা কীর্তিকে নিজেই ছাপিয়ে যেতে চায় নাসা। এ বছরে সে ছুঁতে চায় সূর্যকে। 

ভাবছেন এ কী রে সম্ভব!

নাহ! আক্ষরিক অর্থে সূর্যকে ছোঁয়া সম্ভব নয়। তবে নাসা এ বছরে যতটা সম্ভব সূর্যের কাছাকাছি পৌঁছনোর চেষ্টা করবে বলে জানিয়েছে।

সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, নাসার ‘পার্কার সোলার প্রোব’ পাঠানো হবে সূর্যের কাছে। এ যাবৎ সূর্যের দিকে পাঠানো কোনও শাটল-এর তুলনায় পার্কার সোলার প্রোব সব থেকে কাছে যাবে। নাসার তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে, সূর্য থেকে প্রায় ৬২ লাখ কিলোমিটার দূর দিয়ে যাবে এই উপগ্রহ। 

সূর্যের প্রবল তাপ ও বিকিরণের মাঝেই পার্কার সোলার প্রোব তার কাজ করবে বলে জানিয়েছে নাসা। 

এ ছাড়াও, চলতি বছরে মঙ্গল গ্রহে আরও ‘রোবটিক ফ্লিট’ পাঠাবে নাসা।