১৭ মে বুথে তৃণমূল-আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বিজেপির কাউন্টিং এজেন্টকে মারধর করে ব্যালট ছিনতাই করেছিল। ভেস্তে গিয়েছিল ভোট গণনা।

বিজেপির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ ব্যালট উদ্ধার করলেও রবিবার গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৮৯/১ এবং ১৮৯/২ নম্বর দু’টি বুথের একটি আসনে পুননির্বাচন হয়। 

সোমবার জলপাইগুড়ি রাজগঞ্জ বিডিও কার্যালয়ে পুনর্গণনা হয়। গণনার পরে তৃণমূল প্রার্থী সুপ্রিয়া বিশ্বাসকে ২১৬ ভোটে বিজেপি প্রার্থী ডলি সূত্রধর পরাজিত করেন।

এই দুই বুথে মোট ভোটার ছিল ১৮৪২ জন। ১৭ মে-র গণনায় ভোট পড়েছিল ১৬০৮টি। কিন্তু রবিবারের পুননির্বাচনে ভোট পড়ে ১৫৩৩টি। 
বিজয়ী ডলি সরকার জানান, সেদিন তাঁদের এজেন্টকে মারধর করে ব্যালট ছিনতাই করেছিল শাসক দল। এদিন কড়া নিরাপত্তায় ভাল গণনা হয়েছে।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

তবে সেদিন ঠিক করে গণনা হলে আরও বেশি ভোটে জিততেন বলে দাবি করেছেন জয়ী বিজেপি প্রার্থী। তিনি বলেন, ‘‘ওইদিন তো পুরো মারপিট হল। ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে গিয়েছিল। আজ প্রশাসনিক ব্যবস্থা ভাল ছিল। যদি এরকমই থাকত গণনার দিন, তা হলে আমরা আরও বেশি ভোটে জিততাম।’’

কী বলছেন বিজয়ী বিজেপি প্রার্থী? শুনে নিন নীচের ভিডিওতে:—

 

তবে ভয় এখনও কাটছে না বিজয়ী ডলি সরকারের। তাঁদের আশঙ্কা, শুধু জিতে যাওয়া নয়, এভাবে আবার ভোট করিয়ে জেতার পর, শাসক দলের রোষ বাড়বে বিরোধীদের উপরে। হামলা হতে পারে বলে আশঙ্কা তাঁদের। 

অবশ্য তৃণমূল প্রার্থীর প্রতিক্রিয়া, ‘‘যা হয়েছে মেনে নিতে হবে।’’