ভারতের ধনীতম পরিবার হওয়া সত্ত্বেও চালচলনে মাটির বেশ কাছাকাছি থাকে অম্বানী পরিবার। বিশ্বের অন্যতম বিলাসবহুল বাড়ি অ্যান্টিলাতে সন্তানদের শাসনের মধ্যেই রাখেন জিও-র কর্ণধার মুকেশ অম্বানী এবং তাঁর স্ত্রী নীতা অম্বানী। সুযোগ থাকলেও সন্তানদের এমন কিছু তাঁরা করতে দেন না, যাতে বাড়তি অহংকার জন্মাতে পারে। 

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কিছুদিন আগেই নীতা অম্বানী জানিয়েছেন, তিন সন্তানের সঙ্গে বন্ধুর মতোই মেশেন তিনি। সন্তানরা তাঁর সঙ্গে খোলামেলা হলেও তাঁরা জানেন যে মা আর বন্ধুর মধ্যে একটা সূক্ষ্ম রেখা রয়েছে। সেই রেখাটা তাঁরা কখনও টপকান না আর তাতে খুশিও নীতা।

তবে সঠিক রাস্তায় সন্তানদের মানুষ করার কাজটা যে মোটেই সহজ ছিল না, তা জানিয়েছেন মুকেশ গিন্নি। বিশেষ করে ধনীতম পরিবারের সদস্য হওয়ার দরুণ ভুল পথে চলে যাওয়ার বহু কারণই সন্তানদের সামনে ছিল।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

নীতা অম্বানী জানিয়েছেন, সন্তানদের বহুক্ষেত্রেই পাবলিক ট্রান্সপোর্টে করে বিভিন্ন জায়গায় তিনি পাঠাতেন। হয় তাঁদের দিদার বাড়ি, নইলে কোনও কাজের জায়গায় যাওয়ার সময়ে লোকাল ট্রেনেই সন্তানদের পাঠানো হত। নীতা জানান, এতে নিজেকে আর পাঁচজনের চেয়ে আলাদা ভাবা’র যে অহংকারটা, সেটা জন্মায় না। ছোট থেকে নিজেও যেহেতু মধ্যবিত্ত পরিবারে মানুষ হয়েছেন নীতা অম্বানী,  সাধারণের মধ্যে থেকে বড় হওয়াটাকে ভীষণই গুরুত্ব দিয়ে দেখেন তিনি।