মনে পড়ে শিবরাম চক্রবর্তীর গল্প ‘হাতি নিয়ে হাতাহাতি’? যেখানে রাজামশাইয়ের আবদার মেনে তাঁর জন্য নিয়ে আসা হয় সাদা হাতি। কেবল শর্ত ছিল, এ হাতিকে চান করানো যাবে না! আর এই শর্তের মধ্যেই লুকিয়ে ছিল রহস্য। হাতিকে ধুয়ে ফেললেই যে পরিষ্কার হয়ে যাবে, ওই হাতি মোটেই সাদা হাতি নয়। তাকে রং করে সাদা বানানো হয়েছে।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

কিংবা ‘নীলবর্ণ শিয়াল’-এর গল্পটার কথাও মনে হতে পারে, মিশরের কায়রোর ইন্টারন্যাশনাল গার্জেন মিউনিসিপ্যাল পার্কের এই ঘটনায়। সেখানে এক জেব্রাকে দেখে মাহমুদ এ সারহান নামের এক ছাত্রের মনে হতে থাকে, এ জেব্রা নয়। একটা গাধাকে রং করে জেব্রা বানিয়ে দেওয়া হয়েছে! 

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, ওই ছাত্র জেব্রারূপী গাধাটির ছবি তুলে পোস্ট করে দিয়েছে ফেসবুকে। আর তার পরেই সেটা হয়ে গিয়েছে ভাইরাল। এরই মধ্যে প্রায় ৮ হাজার শেয়ার হয়েছে ছবিটি। নেটিজেনরা ভালবেসে ‘জেব্রঙ্কি’ বা ‘ডনকোবরা’ নামে ডাকছে এই প্রাণীকে। বোঝাই যাচ্ছে গাধার ইংরেজি নাম ডাঙ্কি ও জেব্রার নামের অংশ জুড়ে এহেন নামকরণ। ঠিক যেমন সুকুমার রায়ের বকচ্ছপ (বক ও কচ্ছপ) বা হাঁসজারু (হাঁস ও সজারু)। 

কেবল একটা নয়, দু’টো সন্দেহজনক জেব্রা রয়েছে ওই চিড়িয়াখানায়। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ ব্যাপারটাকে মোটেই মেনে নেয়নি। তারা জানিয়েছে, ওটা জেব্রা। আকারে খানিক ছোট বলে ভ্রম হচ্ছে গাধা বলে।  

ছাত্রটি অবশ্য মেনে নেয়নি কর্তৃপক্ষের সাফাই। সে মামলা করার কথা ভাবতে শুরু করেছে। তার পোস্ট করা ছবির নীচে জমা হওয়া কমেন্ট থেকে পরিষ্কার, নেটিজেনরাও ওই পশুকে গাধা বলেই মনে করছে। আপনিও ভাল করে দেখুন তো, আপনার কী মনে হচ্ছে ছবিটা দেখে?