মাস্টার ব্লাস্টার সচিন তেন্ডুলকরের ‘ভারতরত্ন’-ই এবার সঙ্কটে। তা-ও আবার বাংলাতেই। বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনে মুখ দেখানোর কারণ দর্শিয়ে সচিনের কাছ থেকে ভারতরত্ন কেড়ে নেওয়ার আর্জি জানানো হয়েছিল জনস্বার্থ মামলায়।

শুনানিতে কলকাতা হাইকোর্ট শুক্রবার ভারতরত্ন নিয়ে জনস্বার্থ মামলাটি মামলাকারীকে প্রত্যাহার করে নিতে বলে। তবে সুযোগ দেয় বিষয়টি নিয়ে ফের মামলা করার।

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

কমল দে নামে জনৈক ব্যক্তি ভারতরত্ন নিয়ে জনস্বার্থ মামলা করেন প্রধান বিচারপতি জ্যোতির্ময় ভট্টাচার্য এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চে৷ শুক্রবার মামলার শুনানির সময় কমলের আইনজীবী শ্রীকান্ত দত্ত বলেন, দেশের সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান হল ভারতরত্ন। এযাবৎ ৪৫ জন ব্যক্তিত্বকে ভারতরত্ন সম্মানে ভূষিত করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেন কিংবদন্তিসম ক্রিকেটার সচিন-ও৷ কিন্তু দেখা গিয়েছে, ভারতরত্ন সহ একাধিক সরকারের দেওয়া সম্মানে ভূষিত ৪৪ জন বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনে মুখ না দেখালেও, সচিন এই তালিকায় ব্যতিক্রমী। বিষয়টি কতটা যুক্তিযুক্ত, এই প্রশ্ন তোলেন তিনি৷ শ্রীকান্তবাবু দাবি করেন, এর জন্য সুনির্দিষ্ট গাইড লাইনের প্রয়োজন রয়েছে। 

কিন্তু যেহেতু এই মামলায় পক্ষ থাকা সকলেরই কার্যালয় দিল্লিতে এবং সচিনও কলকাতা তথা এই রাজ্যের বাসিন্দা নন, তাই মামলাকারী কমল দে-কে কোর্ট সুযোগ দেয় দিল্লি হাইকোর্ট বা সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে মামলা করার। এর পরে তাঁর আইনজীবী মামলাটি প্রত্যাহার করে নেন।