বাইক চুরি গিয়েছে বেশ কিছুদিন হল। পুলিশে অভিযোগ জানিয়েছেন, কিন্তু ফিরে পাওয়ার আশা ক্রমে ত্যাগ করছিলেন। হঠাৎই আপনাকে বিস্মিত করে ঘরে ফিরে এল আপনার সাধের বাইক!

এই বিষয়ে অন্যান্য খবর

একটি-দু’টি নয়, এমন ঘটনা ঘটল ১১৮টি। এক মাস ধরে লাগাতার অভিযান চালিয়ে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চারটি থানা এলাকা থেকে পুলিশ উদ্ধার করল চুরি যাওয়া ১১৮টি মোটর বাইক। এই চুরি কাণ্ডে ১৫ জন পান্ডাকে গ্রেফতারও করা হয়েছে।

বুধবার মেদিনীপুর শহরে জেলা পুলিশের দফতরে এই উদ্ধার হওয়া ১১৮টি বাইক একসঙ্গে রেখেছিলেন পুলিশকর্তারা। এই বাইকগুলি উদ্ধারের সঙ্গে সঙ্গে এক মাস ধরে তাদের মালিকের নাম খোঁজ করেছে পুলিশ। এখনও পর্যন্ত ৬৯টি মোটরবাইকের মালিকের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। বুধবার তাদের মধ্য থেকে ২৩ জন বাইক মালিককে জেলা পুলিশের দফতরে ডেকে তাঁদের হাতে এই বাইকগুলির চাবি তুলে দিয়েছেন পুলিশ সুপার অলক রাজোরিয়া।

এই সমস্ত বাইকগুলির মধ্যে পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুর থেকে ৩৩টি, কোতোয়ালি থেকে ৩১টি, গড়বেতা থেকে ৪৩টি ও চন্দ্রকোনা টাউন থানা থেকে ১১টি উদ্ধার হয়েছে। 
এ দিন এই সমস্ত মোটরবাইকগুলি ফেরত দেওয়ার আগে সাংবাদিক বৈঠক করে অলক রাজোরিয়া জানান, একটি বিশেষ অভিযান শুরু করা হয়েছিল পুলিশের পক্ষ থেকে। এই গ্রেফতার ও উদ্ধার অভিযান হওয়ার পরে গত এক মাসে মোটর বাইক চুরির সংখ্যা শূন‍্যে এসে দাঁড়িয়েছে। এই অভিযান অব্যাহত থাকছে।

দেখুন ভিডিও
 

 

পুলিশ সুপার আরও জানিয়েছেন, এই বাইক চোরদের একাধিক গ‍্যাং রয়েছে। প্রতিটি বাইক চুরি হওয়ার পর যে এলাকা থেকে চুরি করা হতো, সেখান থেকে সরিয়ে অন্য কোনও এলাকাতে নিয়ে গিয়ে রাখা হতো। বুধবার পুলিশের হেফাজতে থাকা উদ্ধার হওয়া বাইকগুলি ফিরে পেয়ে তাঁদের মালিকেরা পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।