ভারতের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের বৈচিত্র বোঝাতে দোলের রং, দীপাবলির জৌলুস, পোঙ্গালের স্বাদ এবং ঈদের উৎসবমুখরতার উল্লেখ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর সেই ৈবচিত্র বর্ণালির ছটাই যেন উদ্ভাসিত হল দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে তাঁর ‘মাদিবা’ শার্টে!
গতকাল জোহানেসবার্গে প্রবাসী ভারতীয়দের সভায় বক্তৃতার সময়ে মোদী পরেছিলেন ইন্দোনেশিয়ান সিল্কের বাটিক প্রিন্টের শার্ট। যে ধরনের শার্টে হামেশাই দেখা যেত দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম প্রেসিডেন্ট নেলসন ম্যান্ডেলাকে। দেশবাসীর সশ্রদ্ধ সম্বোধনে যিনি ছিলেন ‘মাদিবা’ (স্থানীয় ‘খোসা’ ভাষায় এর অর্থ ‘রাজা’)।
মোদীর পরিধেয় রুপোলি জমির উপরে কালো ফুলের নকশার শার্টটিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বলা হচ্ছে ‘মোদীর মাদিবা মুহূর্ত’। ফ্যাশন-দুরস্তদের মতে, ওই পোশাকে স্থানীয়দের সঙ্গে যোগসূত্র স্থাপন করতে হয়তো অনেকটাই সক্ষম হয়েছেন মোদী। তবে, চর্চা কেবল এতেই আটকে নেই। বক্তৃতামঞ্চের রংবাহারি এবং ঘূর্ণায়মান আলোয় প্রধানমন্ত্রীর শার্টের রং যেভাবে নানা রঙের আভাসে ঝলসে উঠেছে, তাতে গোটা অনুষ্ঠানে ‘ডিস্কোথেকে’র অনুষঙ্গও টানছেন কেউ কেউ! সেই কটাক্ষ-চর্চাও ছড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। 
যেমন একজন টুইট করেন, ‘স্মৃতি ইরানি বস্ত্রমন্ত্রকের দায়িত্ব নেওয়ার পরে ভারতে বস্ত্রবিপ্লব’! আরেকজনের টুইট, ‘জো’বার্গে মোদীর শার্ট নিয়ে ভাবছি। উনি কী এবার হাওয়াইয়ান নাচ নাচবেন’? অন্য একজন তাঁর টুইটার হ্যান্ডলে লিখেছেন, ‘মোদীর বক্তৃতার চেয়েও ভাল লাগছে ওঁর শার্ট! মেরা নাম জোকারে বিখ্যাত রাজ কপূরের কথা মনে পড়ছে’!
ম্যান্ডেলাকে প্রথম ওই ধরনের রঙচঙে বাটিক শার্ট পরতে দেখা গিয়েছিল ১৯৯৪ সালে। পিছনের কাহিনিটি হল, সেবছরই দক্ষিণ আফ্রিকার ফ্যাশন ডিজাইনার দেস্‌রে বুইর্সকি ওইরকম নকশাদার একটি শার্ট উপহার দিয়েছিলেন ম্যান্ডেলাকে। ম্যান্ডেলা (তখনও প্রেসিডেন্ট হননি) কেপ টাউনে একটি সভায় আসছেন শুনে কাবার্ড ঘেঁটে তাঁর জন্য নিজের হাতে তৈরি একটি শার্ট বার করেছিলেন বুইর্সকি। কালো জমির উপরে সোনালি এবং ক্রিম রঙে মাছের নকশা তোলা সেই শার্ট পরেই কেপ টাউনে সভা করেছিলেন মাদিবা। প্রথম দর্শনেই সুপারহিট! বুইর্সকি নাকি পরে ম্যান্ডেলার জন্য বিভিন্ন নকশায় ১৫০’র বেশি ‘মাদিবা’ শার্ট তৈরি করে দেন। 
গত লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে মোদীর পোশাক। চর্চা হয়েছে প্রয়াত বলিউড তারকা রাজেশ খন্না-খ্যাত ‘গুরু শার্টে’র আদলে তৈরি মোদী-কুর্তা থেকে তাঁর নিজের নাম লেখা স্ট্রাইপের স্যুট নিয়ে। যার সাম্প্রতিক সংযোজন মোদীর ‘মাদিবা’ শার্ট। 
তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় অন্যান্য অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে দেখা যাচ্ছে পরিচিত বন্ধগলা স্যুট এবং মোদী-কুর্তাতেই। আজ দক্ষিণ আফ্রিকায় মোহনদাস কর্মচন্দ গাঁধীর সেই ঐতিহাসিক ট্রেনযাত্রার পথের কিছুটা পুরনো ট্রেনে চড়েই পাড়ি দেন মোদী। ১৮৯৩ সালের ৭ জুন গাঁধীকে ‘কালা আদমি’ বলে যেখানে ট্রেন থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল, সেই পিটারমারিট্‌সবার্গে তিনি গাঁধীর প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপনও করেন। সেখানেও পোশাকি-বৈচিত্র ছিল না।